তৃণমূল ছাত্র পরিষদ (টিএমসিপি)-এর সভাপতি নির্বাচনে সাহায্য করতে তৈরি হল উপদেষ্টা কমিটি। উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারম্যান করা হল পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। শনিবার তৃণমূল ভবনে তৃণমূল ছাত্রপরিষদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নতুন উপদেষ্টা কমিটির কো-চেয়ারম্যান পদে রাখা হয়েছে তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এ ছাড়া উপদেষ্টা কমিটিতে রয়েছেন সুব্রত বক্সী, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, তাপস রায় এবং অশোক দেব। আপাতত তৃণমূল ছাত্র পরিষদের আহ্বায়ক করা হয়েছে জয়া দত্তকে।

রাজ্যের বিভিন্ন কলেজে ভর্তি নিয়ে বিতর্কের জেরে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ নেতৃত্বের উপর ক্ষুব্ধ ছিল দল। যে কারণে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল দলের তৎকালীন সভাপতি জয়া দত্তকে। তৃণমূল সূত্রে খবর, এক সপ্তাহের মধ্যে টিএমসিপি সভাপতি নির্বাচনে সাহায্য করবে এই কমিটি।

আজকের বৈঠকে ডাকা হয়েছিল সমস্ত কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদকদের। হাজির ছিলেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির টিএমসিপি ইউনিট সভাপতিরাও। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী, বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়, তাপস রায়-সহ তৃণমূলের রাজ্য নেতৃত্বের একটা বড় অংশ।

আরও পড়ুন: মমতা এখন বিরোধী থাকলে, কী করতেন? বিরোধীরা বললেন, আর একটা মমতা চান তো!

আরও পড়ুন: বিহারীদের সংগঠনকে তৃণমূলে আনলেন মমতা

এই বৈঠকেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিতে ছাত্রছাত্রীদের সংযত থাকার বার্তা দেন তৃণমূল নেতৃত্ব। তৃণমূল সূত্রে খবর, এক সময়ের ডাকসাইটে ছাত্র নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায় ছাত্রছাত্রীদের উপদেশ দিয়েছেন, ‘‘ টাকা নিয়ে নয়, ফুল দিয়ে নতুন ছাত্রছাত্রীদের অভিনন্দন জানান।’’সভায় বক্তব্য রাখেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও। পড়ুয়াদের প্রতি তাঁর হুঁশিয়ারি, ‘‘ছাত্র সংগঠনে থাকতে হলে ছাত্র হতে হবে। ছাত্র সুলভ আচরণের পাশাপাশি শিক্ষকদের সঙ্গে ভাল সম্পর্ক রাখতে হবে।’’ পাশাপাশি তিনি জানিয়ে দেন, উপস্থিতির হার ঠিক রাখতে হবে। উপস্থিতির হার কম থাকলে  নম্বর কমে যাবে সেমিস্টারে। এই নিয়ে আন্দোলন করা যাবে না কলেজের গেটে। ঘেরাও করা করা যাবে না কলেজ। দলের সমস্ত কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে ছাত্র সংসদগুলিকে।

(বাংলার রাজনীতি, বাংলার শিক্ষা, বাংলার অর্থনীতি, বাংলার সংস্কৃতি, বাংলার স্বাস্থ্য, বাংলার আবহাওয়া - পশ্চিমবঙ্গের সব টাটকা খবর আমাদের রাজ্য বিভাগে।)