পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষের স্বামী এমএভি রাজুর পাঁচ দিনের সিআইডি হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত।

কলকাতা হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন খারিজ হতেই রাজুকে গ্রেফতার করেছিল সিআইডি। বুধবার তাঁকে ঘাটাল আদালতে তোলা হয়। ঘাটালের এসিজেএম লীলা গোলদার রাজুকে পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন। আগামী ১৩ অগস্ট তাঁকে মেদিনীপুর আদালতে তোলা হবে।

এ দিন রাজুর আইনজীবী গোপা দেব আদালতকে জানান, তাঁর মক্কেল সিআইডির সঙ্গে সহযোগিতা করছেন। মামলার চার্জশিট হয়ে গিয়েছে। এই মামলাটি মেদিনীপুরের বিশে‌ষ আদালতে স্থানান্তরিত  হয়েছে। এখানে কোনও রেকর্ড নেই। তাই জামিনে মুক্তি দিয়ে নির্দিষ্ট আদালতে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হোক। সওয়াল চলাকালীন রাজু আচমকাই আদালতকে জানান, তিনি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট। এই ঘটনায় তাঁকে হয়রানি করা হচ্ছে। সিআইডির আইনজীবী ঝাড়গ্রামের এক পুরনো মামলায় উদাহরণ দেন। তাঁর বক্তব্য, সংশ্লিষ্ট মামলাটি মেদিনীপুর আদালতে পাঠানো হয়েছিল। তা সত্ত্বেও এসিজেএম জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

স্বামী গ্রেফতার হতেই অডিয়ো বার্তা দিয়েছেন ভারতী। সেই বার্তায় তিনি বলেছেন, ‘‘আমার সাহায্যে এই রাজ্যে জঙ্গলমহল পরিষ্কার হয়েছে। শ’য়ে শ’য়ে মাওবাদী আমার হাত ধরে আত্মসমর্পণ করেছে। আমি যদি আজকে এক জন জুলুমবাজ হতাম, তা হলে মাওবাদীরা আমার হাত ধরে আত্মসমর্পণ করত? জঙ্গলমহল পরিষ্কার হত?” প্রাক্তন পুলিশ সুপারের দাবি, ‘‘রাজুর এক টুকরোও বেনামি সম্পত্তি নেই। ওঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে বেআইনি টাকা, সোনা কিছুই নেই। তা সত্ত্বেও সিআইডি ওঁকে গ্রেফতার করেছে। এটা প্রতিহিংসা।’’

 

পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলার খবর এবং বাংলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাংলায় খবর পেতে চোখ রাখুন আমাদের রাজ্য বিভাগে।