• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বিজেপির নির্বাচন কমিটির আহ্বায়ক করা হচ্ছে মুকুল রায়কে

Mukul Roy
মুকুল রায়। ফাইল চিত্র।

লোকসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে মুকুল রায়কে গুরুদায়িত্ব দিলেন অমিত শাহ। বিজেপির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক করা হল মুকুল রায়কে। এই কমিটিরই চেয়ারম্যান দিলীপ ঘোষ। এ বার মুকুল রায়কে ওই কমিটির আহ্বায়ক করা হল। অন্যদিকে ফোন বিতর্কে দিল্লিতে ফের আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছেন মুকুল। আগেই তিনি অভিযোগ করেছিলেন, তাঁর ফোনে আড়ি পাতা হচ্ছে। এবার তাঁর সঙ্গে কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র ফোনে কথোপকথনের অডিয়ো ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর ফের আদালতে যাচ্ছেন তিনি। আদালত অবমাননার অভিযোগও তিনি আনবেন বলে মুকুল রায়ের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর। 

তবে শুধু মুকুল রায়ই নয়, অরবিন্দ মেননকে করা হচ্ছে রাজ্য বিজেপির কেন্দ্রীয় সহকারী পর্যবেক্ষক। কৈলাস বিজয়বর্গীয়র সঙ্গে এ রাজ্যের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষণের দায়িত্বভার সামলেছিলেন সিদ্ধার্থনাথ সিংহ। কিন্তু উত্তরপ্রদেশে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর, সিদ্ধার্থনাথকে সেই রাজ্যেরই মন্ত্রী করা হয়। দীর্ঘ দিন সেই পদটি ফাঁকা থাকার পর অরবিন্দ মেননকে রাজ্য বিজেপির সহকারী পর্যবেক্ষক করা হচ্ছে।

গত নভেম্বরে তৃণমূল ছেড়ে সাধারণ নেতা হিসেবেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন মুকুল রায়। কিন্তু তৃণমূল ছেড়ে আসা মুকুল রায়কে কোন দায়িত্ব দেওয়া হবে, তা নিয়ে দীর্ঘ দিন টানাপড়েন কাটছিল না রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্বের। এত দিন তাঁকে সে ভাবে কোনও স্থায়ী পদ দেওয়া হয়নি। শেষ পর্যন্ত মুকুল রায়েরই হাতে তুলে দেওয়া হল নির্বাচনী লড়াইয়ের টিকিট বিতরণের মতো বড় দায়িত্ব।

আরও পড়ুন: কৈলাস-মুকুলের সেই ‘ফোনালাপ’, শুনুন কী বললেন

আরও পড়ুন: পুজোর কলকাতায় রাহুলের সফরসূচি নিয়ে দিল্লিতে বৈঠক সোমেন মিত্রের

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের জন্য ময়দানে নেমে পড়েছেন বিজেপি নেতৃত্ব। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সভাপতি অমিত শাহও বেশ কয়েক বার নির্বাচনী প্রচারের জন্য পশ্চিমবঙ্গ ঘুরে গিয়েছেন। ময়দানে জোরকদমে প্রচার চালাতে শুরু করে দিয়েছেন রাজ্য বিজেপি নেতারা। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ থেকে শুরু করে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়, সায়ন্তন বসুরা রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে লোকসভা নির্বাচনের জন্য ছুটে বেড়াচ্ছেন।

গত লোকসভা নির্বাচনে এ রাজ্য থেকে বিজেপি মাত্র দু’টি আসনে জয়লাভ করেছিল। তবে পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর যে এ রাজ্যে বিজেপিই মূল বিরোধী শক্তি, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

ত্রিপুরায় জয়লাভ করার পরেও বাংলা দখলেরই ডাক দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদীর প্রধান সেনাপতি অমিত শাহ। রাজ্য বিজেপি নেতাদের পশ্চিমবঙ্গ থেকে ২২টি আসনে জয়লাভের টার্গেটেও দিয়ে দিয়েছিলেন বিজেপি সভাপতি। আর এরই মধ্যে মুকুল রায়কে নির্বাচন ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক করে ওই টার্গেটকেই আরও স্পষ্ট করে দিলেন অমিত শাহ।

(বাংলার রাজনীতি, বাংলার শিক্ষা, বাংলার অর্থনীতি, বাংলার সংস্কৃতি, বাংলার স্বাস্থ্য, বাংলার আবহাওয়া - পশ্চিমবঙ্গের সব টাটকা খবর আমাদের রাজ্য বিভাগে।)

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন