কাশ্মীরে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের সমর্থনে আগামী শুক্র ও শনিবার রাজ্যের জেলায় জেলায় মোটরবাইক মিছিল করবে বিজেপির যুব মোর্চা। ওই কর্মসূচির কথা পুলিশকে আগে জানাচ্ছে না তারা। একই সঙ্গে ওই দু’দিন জেলায় জেলায় জন্মাষ্টমী পালন করবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। ওই দুই কর্মসূচির জেরে আগামী শুক্র ও শনিবার রাজ্য জুড়ে গোলমালের আশঙ্কা করছে বিজেপিরই একাংশ।

বিজেপি সূত্রের খবর, দলের এক কেন্দ্রীয় নেতা দলীয় বৈঠকে বলেছেন, গোলমাল হলে আখেরে তাঁদেরই রাজনৈতিক লাভ হবে। কারণ, যে পরিস্থিতি তৈরি হবে, তাতে ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে পারবে দল। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অবশ্য পুলিশকে না জানিয়ে মোটরবাইক মিছিলের পরিকল্পনার কথা মানছেন না। উল্টে তাঁর দাবি, ওই কর্মসূচি ঘিরে গোলমাল হলে তার দায় পুলিশকে নিতে হবে। দিলীপবাবুর কথায়, ‘‘যুব মোর্চা নিশ্চয়ই ওদের কর্মসূচির কথা পুলিশকে জানাবে। তবে পুলিশ তো আমাদের কর্মসূচিতে অনুমতিই দেয় না! এ ক্ষেত্রে অনুমতি না দিলেও মোটরবাইক মিছিল হবে।’’ তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের প্রতিক্রিয়া, ‘‘গণতান্ত্রিক দেশে সব রাজনৈতিক দলই সংবিধানসম্মত উপায়ে কর্মসূচি করতে পারে। কিন্তু গোলমালের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করলে রাজ্যের মানুষ তা মেনে নেবে না। কারণ এ রাজ্যের এটা সংস্কৃতি নয়। আর প্রশাসনও নিশ্চয়ই গোলমালের মোকাবিলা করবে।’’ অন্য দিকে, রবিবার বারুইপুরে দিলীপবাবুর নেতৃত্বে অনেকে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন।