উচ্চ প্রাথমিক স্তরে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে শিক্ষক সংগঠন ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্তি মঞ্চ’ যে-মিছিল করতে চাইছে, তাতে পুলিশকে সহযোগিতা করতে হবে বলে বৃহস্পতিবার নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি শম্পা সরকার জানিয়ে দিয়েছেন, মিছিল করা নাগরিকদের মৌলিক অধিকার।

শিক্ষক ঐক্য মুক্তি মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক মইদুল ইসলাম জানান, হাইকোর্টের নির্দেশে আজ, শুক্রবার তাঁদের সংগঠনের প্রস্তাবিত স্কুল সার্ভিস কমিশনের (এসএসসি) দফতর অভিযান স্থগিত রাখা হচ্ছে। ২৫ অক্টোবর এই অভিযান হবে।

শুক্রবার সল্টলেকের করুণাময়ী থেকে এসএসসি-র কার্যালয় পর্যন্ত মিছিল করতে চেয়ে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের কাছে আবেদন করেছিল শিক্ষক ঐক্য মুক্তি মঞ্চ। পুলিশ মিছিলের অনুমতি না-দেওয়ায় সংগঠনের পক্ষ থেকে হাইকোর্টে মামলা দায়ের করা হয়। সংগঠনের আইনজীবী ফিরদৌস শামিম জানান, মামলার আবেদনে বলা হয়, শান্তিপূর্ণ মিছিল করে এসএসসি-কর্তৃপক্ষকে স্মারকলিপি দেওয়ার কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। কিন্তু পুলিশ মৌখিক এবং লিখিত ভাবে জানিয়ে দিয়েছে, মিছিলের অনুমতি দেওয়া যাবে না।

সরকারি কৌঁসুলি সাবির আহমেদ এ দিন আদালতে জানান, পুলিশের পক্ষে এত অল্প সময়ের মধ্যে মিছিলকারীদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়। তা শুনে বিচারপতি সরকার জানিয়ে দেন, মিছিল করা মৌলিক অধিকার। তাই পুলিশকে সহযোগিতা করতেই হবে। সেই সঙ্গে তিনি নির্দেশ দেন, সাত দিনের মধ্যে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটকে জানিয়ে দিতে হবে, কী ভাবে তারা শিক্ষকদের ওই সংগঠনের কর্মসূচি পালনে সহযোগিতা করতে পারবে। শিক্ষক ঐক্য মুক্তি মঞ্চের তরফে মইদুল বলেন, ‘‘উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি হয়েছে। তার প্রতিবাদ জানাতে এবং গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষার্থে যখন মিছিলের অনুমতি চাওয়া হল, অগণতান্ত্রিক ভাবে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য যে, মিটিং-মিছিল করাটা সাংবিধানিক অধিকার হওয়া সত্ত্বেও তার অনুমতির জন্য হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতে হল!’’