• ঋজু বসু
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পুরুষ, তৃতীয় লিঙ্গের ধর্ষণ নিয়ে মামলা সুপ্রিম কোর্টে

SC
—ফাইল চিত্র।

নৈঃশব্দ্যের অন্য এক জগৎ। কিশোর বয়সে ট্রেনে করে স্কুলে যাওয়ার সময়টা ভাবলেই এখনও গা গুলিয়ে ওঠে সেই যুবকের। সহযাত্রী ‘কাকু’, ‘দাদা’দের উৎকট স্পর্শ মুখ বুজে সহ্য করাটাই ভবিতব্য বলে মানতে বাধ্য হয়েছিলেন বারাসতের বাসিন্দা, নরম-সরম চেহারার ছেলেটি। কলেজে ঢুকে ১৮ পার করেও এমন অপমানের মুখোমুখি তাঁকে হতে হয়েছে। 

বিসমকামী কিন্তু শারীরিক ভাবে অপেক্ষাকৃত দুর্বল এই পুরুষটি লোকলজ্জায় পারেননি, অত্যাচারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে। ধর্ষণ বা যৌন অত্যাচারের শিকার বহু রূপান্তরকামী পুরুষ বা মহিলাও। সুপ্রিম কোর্টে সদ্য দাখিল হওয়া একটি পিটিশন তাঁদের অনেকেরই এই ক্ষতের জায়গাটি খুঁচিয়ে তুলছে। ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী, এখনও শুধু মাত্র মেয়েরাই ধর্ষণের শিকার হতে পারেন বলে মনে করা হয়। পুরুষ বা রূপান্তরকামীদের উপরে যৌন নির্যাতনকে ধর্ষণের আওতাভুক্ত করতে এ মাসের গোড়ায় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার তরফে মামলা করেন আইনজীবী ফুজ়েইল আহমেদ আয়ুবি। দীপাবলির আগেই সর্বোচ্চ আদালতে বিষয়টির শুনানি হওয়ার কথা। 

ফোনে দিল্লি থেকে আয়ুবি বলছিলেন, ‘‘শিশুদের উপরে যৌন নির্যাতন রুখতে পকসো আইন তো লিঙ্গ নিরপেক্ষ হিসেবেই দেখা হচ্ছে। তাহলে প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষরা বা রূপান্তরকামীরা ধর্ষণ বা যৌন নিগ্রহের শিকার কখনও হতে পারবেন না কেন?’’ উঠে আসছে ৩৭৭ ধারা নিয়ে সর্বোচ্চ আদালতের সাম্প্রতিক রায়টির প্রসঙ্গও। কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী জয়ন্তনারায়ণ চট্টোপাধ্যায়ের মত, ‘‘৩৭৭ ধারায় দুই প্রাপ্তবয়স্কের সম্মতিক্রমে তথাকথিত অস্বাভাবিক যৌনাচার বা পায়ু সঙ্গম এখন আর অপরাধ নয়। কিন্তু পুরুষ বা রূপান্তরকামীদের উপরে জোর করে যে ধরনের যৌন অত্যাচার হয়, তাতে ধর্ষণের সংজ্ঞা আর একটু বিস্তৃত করাই যেত।’’ 

নির্ভয়া-কাণ্ডের পরে বিচারপতি বর্মার কমিটির সুপারিশ পুরুষাঙ্গ প্রয়োগ ছাড়া অন্য ভাবে যৌন অত্যাচারকেও ধর্ষণ বলে মনে নিয়েছে। তবে আইনত, ধর্ষণকারী এখনও শুধুই পুরুষ। ২০১২-য় লোকসভার একটি বিল অবশ্য ধর্ষণকে, যৌন নির্যাতন হিসেবে দেখতে এবং ধর্ষণকারীকে পুরুষ না-বলে অভিযুক্ত ব্যক্তি হিসেবে দেখতে বলেছিল। পরে নির্ভয়া-কাণ্ডে বিষয়টা ধামাচাপা পড়ে। আয়ুবির মামলাটি ফের ধর্ষণের অভিযুক্তকে লিঙ্গ নিরপেক্ষ হিসেবে দেখতে চায়। পুরুষ অধিকার রক্ষা কর্মী নন্দিনী ভট্টাচার্যও বলছেন, ‘‘পুরুষরা তো বটেই, কখনও বয়সে বড় মেয়েরাও সদ্য যুবকদের জোর করে।’’ বাস্তবিক, কানাডার আইনে ধর্ষণকে তীব্র যৌন অত্যাচার বলা হয়। ধর্ষণকারীকেও লিঙ্গনিরপেক্ষ ভাবে দেখাটাই কানাডায় দস্তুর। সমাজকর্মী তথা অধ্যাপক শাশ্বতী ঘোষ কিন্তু বলছেন, ‘‘এ দেশে ক্ষমতার বিন্যাস অনুযায়ী এখনও প্রধানত মেয়েরাই ধর্ষণের শিকার বলে ভাবাটায় ভুল নেই।’’ 

তবে এ দেশের পুলিশ প্রশাসন বহু ক্ষেত্রে পুরুষ বা রূপান্তরকামীদের যৌন হেনস্থাকে লঘু চোখে দেখে। গত এপ্রিলেই কলকাতার একাডেমী অব ফাইন আর্টস লাগোয়া এলাকায় অনুষ্ঠান করা নিয়ে একটি সংঘর্ষে যৌন হেনস্থার অভিযোগ করেন কয়েক জন রূপান্তরকামী। কিন্তু ফল হয়নি, তাতে। একদা রাজ্য ট্রান্সজেন্ডার ডেভলপমেন্ট বোর্ডের সদস্য রঞ্জিতা সিংহের মতে, ‘‘রূপান্তরকামীদের যৌন হেনস্থা নিয়ে পুলিশে গিয়ে উল্টে অপমানিত হওয়ার অভিজ্ঞতা বার বার হয়েছে।’’ 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন