মামলা ১২ সপ্তাহের জন্য মুলতুবি করে দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। তবে সিবিআই জানাল, নারদ-কাণ্ডের তদন্ত এক মাসের মধ্যে শেষ করে বিশেষ আদালতে চার্জশিট পেশ করা হবে। হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচীর আদালতে শুক্রবার এ কথা জানান কেন্দ্রের অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল কৌশিক চন্দ।

হাইকোর্টের প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত বিচারপতি নিশীথা মাত্রের ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশে নারদ স্টিং অপারেশনের তদন্ত শুরু করে সিবিআই। ওই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এফআইআর দায়ের করে তৃণমূল সাংসদ অপরূপা পোদ্দার-সহ ১২ জনের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তদের মধ্যে রাজ্যের কয়েক জন মন্ত্রী, সাংসদ এবং আইপিএস অফিসারও রয়েছেন। সিবিআইয়ের এফআইআর খারিজ করার আবেদন জানিয়ে বিচারপতি বাগচীর আদালতে মামলা করেন অপরূপা এবং ইকবাল আহমেদ।

কৌশিকবাবু এ দিন আদালতে আরও জানান, নারদ-কাণ্ডের তদন্তে নেমে সিবিআই স্টিং অপারেশনে ব্যবহৃত আইফোনটি আমেরিকায় অ্যাপল সংস্থার কাছে পাঠিয়েছে। উদ্দেশ্য ওই আইফোনে তোলা ছবিগুলি উদ্ধার করা। এ ছাড়া স্টিং অপারেশনে যে-সব সাংসদ ও মন্ত্রীকে টাকা নিতে দেখা গিয়েছে, তাঁদের কণ্ঠস্বর মিলিয়ে দেখার জন্য সংশ্লিষ্ট ভিডিয়ো ফুটেজটি গাঁধীনগরে কেন্দ্রীয় ফরেন্সিক ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়েছে। আমেরিকার বিচার বিভাগের মাধ্যমে অ্যাপল সংস্থার কাছ থেকে রিপোর্ট আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। গাঁধীনগরের ফরেন্সিক রিপোর্টও হাতে আসার অপেক্ষায়। দু’টি রিপোর্ট পাওয়ার পরে চার্জশিট পেশ করার জন্য লোকসভা ও বিধানসভার অনুমতি চাওয়া হবে।

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

অপরূপার আইনজীবী রাজদীপ মজুমদার আদালতে জানান, সিবিআইয়ের তথ্যপ্রমাণ আইনগ্রাহ্য নয়। আসল ফুটেজই আইনগ্রাহ্য। কিন্তু সেটি সিবিআইয়ের হাতে নেই।

দু’পক্ষের বক্তব্য শুনে বিচারপতি বাগচী জানান, আগামী ১২ সপ্তাহের জন্য মামলাটি মুলতুবি রাখা হচ্ছে। এর আগে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, মামলার আবেদনকারীদের বিরুদ্ধে কড়া আইনি পদক্ষেপ করা যাবে না। সেই নির্দেশের মেয়াদ ১৬ সপ্তাহ বাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে।