তাঁর বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র চলছে, এবং সেই ষড়যন্ত্রেরই অংশ হিসাবে ধরা হয়েছে তাঁর স্বামীকে, এমনটাই অভিযোগ করলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ। হিসাব বহির্ভূত সম্পত্তির মামলায় মঙ্গলবার প্রাক্তন আইপিএস ভারতীর স্বামী এমএভি রাজুকে  গ্রেফতার করে সিআইডি। সোনা কেনার নামে প্রতারণার অভিযোগে দাসপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন চন্দন মাজি নামে এক ব্যক্তি। সেই মামলার চার্জশিটে ভারতী ঘোষ, তাঁর স্বামী এমএভি রাজু এবং ভারতীর দেহরক্ষী সুজিত মণ্ডল-সহ ৯ জনের নাম ছিল।

রাজুকে গ্রেফতারের পর একটি অডিও বিবৃতি প্রকাশ করেন ভারতী। তাতে তিনি অভিযোগ করেন, “রাষ্ট্রশক্তি আমার পিছনে উঠেপড়ে লেগেছে আমার জীবন ধ্বংস করার জন্য।” তাঁর দাবি, কোনও হিসাব বহির্ভূত সম্পত্তি না পাওয়া সত্ত্বেও তাঁর স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে পরিকল্পনা করে। 

গত ফেব্রুয়ারি থেকে অন্তর্বতীকালীন জামিনে ছিলেন রাজু। সেই জামিনের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় মঙ্গলবার হাইকোর্টে ফের জামিনের আবেদন জানাতে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে হাজির ছিলেন সিআইডির অফিসাররাও।

সিআইডির তরফে আদালতের কাছে আর্জি জানানো হয়, রাজুর বিরুদ্ধে চার্জশিট ইতিমধ্যেই জমা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে থাকায় তদন্ত করা যায়নি।

কী বললেন ভারতী, শুনে নিন সম্পূর্ণ অডিও বিবৃতি...

সিআইডি জানায়, তদন্তের স্বার্থেই রাজুকে নিজেদের হেফাজতে নিতে চায় তারা। বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ সব শোনার পর রাজুর জামিনের আবেদন খারিজ করে দেয়। তার পরেই তাঁকে আটক করে সিআইডি। এর পর ভবানী ভবনে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। সেখানেই গ্রেফতার করা হয় রাজুকে।

আরও পড়ুন: দেশজুড়ে পরিবহণ ধর্মঘটের বিক্ষিপ্ত প্রভাব পড়ল এ রাজ্যেও

আরও পড়ুন: এসপিকে ডেকে পাঠিয়ে তিরস্কার