স্বাস্থ্যের পরে এ বার শিক্ষাতেও নিয়ন্ত্রক কমিশন।

বেসরকারি স্কুলগুলির অতিরিক্ত ফি-তে নিয়ন্ত্রণে আনতে বুধবার স্বনিয়ন্ত্রিত (সেল্‌ফ রেগুলেটরি) কমিশন তৈরি করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

টাউন হলে বুধবার বিভিন্ন বেসরকারি স্কুল ও কলেজের সঙ্গে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী এ দিন প্রতিটি স্কুলের নাম করে করে অতিরিক্ত ফি এবং ডোনেশন কেন নেওয়া হচ্ছে, তার জবাবদিহি চান। তাঁর কড়া প্রশ্নের মুখে অনেক স্কুলই সদুত্তর দিতে পারেনি।
এর পরেই মমতার পরামর্শ, বেসরকারি স্কুলগুলির ফি-কাঠামো, ডোনেশনের পরিমাণ  খতিয়ে দেখতে কমিশন গড়া হবে। বছরের মাঝপথে ছাত্রদের থেকে বাড়তি টাকা নেওয়া হচ্ছে কি না বা ফি বছর অডিট হচ্ছে কি না, তা-ও নজর রাখা হবে। চার মাস অন্তর বৈঠক করে কমিশন স্কুলগুলির বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ পর্যালোচনা করবে।

কোনও স্কুলের নির্দিষ্ট সমস্যা নিয়ে পড়ুয়া, শিক্ষক, অভিভাবক যাতে অভিযোগ জানাতে পারেন, সে জন্যও আলাদা ওয়েবসাইট করার নির্দেশ দেন মমতা। বৈঠকের পরে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘কমিশন যাবতীয় অভিযোগ পর্যালোচনা করে শিক্ষা দফতরকে জানাবে। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে তখন পদক্ষেপ করা হবে।’’

আরও পড়ুন: সব স্কুলেই বাংলা আগামী শিক্ষাবর্ষে

কমিশনে স্কুলশিক্ষা সচিব, রাজ্য পুলিশের ডিজি এবং কলকাতা পুলিশ কমিশনারের একজন করে প্রতিনিধির পাশাপাশি সেন্ট জেভিয়ার্স, মডার্ন হাই, লা মার্টিনিয়র, ডিপিএস (রুবি পার্ক), সেন্ট লরেন্স, লোরেটো স্কুল, হেরিটেজ, শ্রীশিক্ষায়তন, সাউথ পয়েন্ট, ইয়ং হরাইজনের মতো স্কুলের প্রতিনিধিকেও রাখার কথা বলেছেন মমতা। দু’জন আর্চবিশপ, দার্জিলিঙের এক প্রতিনিধি এবং প্রতি জেলা থেকে পরিকল্পনা আধিকারিককে কমিশনে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। থাকতে পারেন আইনি বিশেষজ্ঞও।