বাংলায় বিজেপি এবং তৃণমূলের বিরুদ্ধে যৌথ আন্দোলনের মঞ্চ গড়ে তুলতে আরও এক ধাপ এগোল কংগ্রেস ও সিপিএম। দু’দলের নেতা সীতারাম ইয়েচুরি ও প্রদীপ ভট্টাচার্যের প্রাথমিক আলোচনায় ঠিক হল, দিল্লিতে দু’পক্ষের শীর্ষ নেতৃত্ব শীঘ্রই মুখোমুখি আলোচনায় বসে এই ব্যাপারে রূপরেখা তৈরি করবেন। তার আগে দু’দলেরই রাজ্য স্তরের নেতৃত্বের মতামত নিয়ে রাখা হবে। কংগ্রেস ও সিপিএম নেতাদের মতে, শুধু ভোটের সময়ে আসন সমঝোতার চেষ্টায় লাভ নেই। যৌথ ভাবে ধারাবাহিক আন্দোলনের পথে থেকেই মানুষের কাছে ‘গ্রহণযোগ্যতা’ তৈরি করতে চান তাঁরা।

আলিমুদ্দিনে চার বাম দলের বৈঠকে মঙ্গলবারই ফরওয়ার্ড ব্লকের নেতা নরেন চট্টোপাধ্যায় ও হাফিজ আলম সৈরানি প্রস্তাব দিয়েছিলেন, কংগ্রেস-সহ গণতান্ত্রিক সব দলকে নিয়ে বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে একটি নতুন মঞ্চ গড়া হোক। সেই মঞ্চের কনভেনশন ডেকে কর্মসূচি নিয়ে রাস্তায় নামা হোক। এর পরে বুধবার দিল্লিতে প্রদেশ কংগ্রেসের সমন্বয় কমিটির চেয়ারম্যান প্রদীপবাবুর সঙ্গে কথা হয়েছে সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক ইয়েচুরির। রাজ্যের পরিস্থিতি আলোচনা করে দু’জনেই একমত যে, সময় নষ্ট না করে দু’পক্ষের নির্দিষ্ট কর্মসূচি ঠিক করে ফেলা উচিত।

প্রদীপবাবুর কথায়, ‘‘বিক্ষিপ্ত ভাবে কিছু কর্মসূচি নিয়ে লাভ হবে না। নির্দিষ্ট ভাবে পথ ঠিক করে নিয়ে এগোতে হবে। ঠিক হয়েছে, জুলাইয়ের শেষ বা অগস্টের শুরুতে কংগ্রেস ও সিপিএম নেতারা দিল্লিতে আলোচনায় বসবেন। দু’দলের রাজ্য নেতারাও সেখানে থাকবেন।’’ প্রমোদ দাশগুপ্ত স্মারক বক্তৃতা করতে শনিবার কলকাতায় আসার কথা ইয়েচুরির। তখন দলের রাজ্য নেতাদের সঙ্গে তিনি এই বিষয়ে কথা বলবেন। শুধু সিপিএম নেতারাই কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসবেন, নাকি চার বাম দলকে নিয়ে বসা হবে, সে বিষয়ে দলে কথা বলে নেওয়া হবে। তবে কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনায় বসে রাজ্যে তৃণমূল ও বিজেপির বাইরে বিকল্প তৈরির প্রচেষ্টায় তিনি একমত।

রাজ্যের তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনও আসন্ন। কংগ্রেস ও সিপিএমের রাজ্য নেতারা চাইছেন নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া করেই ওই তিন আসনে প্রার্থী দিয়ে নতুন ইনিংস শুরু করতে। ভোটের ফল তখনই আশানুরূপ না হলেও এই রাস্তা ধরেই এগোতে চান তাঁরা।   

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও।সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।