স্কুল সার্ভিস কমিশন (এসএসসি)-এর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কর্মপ্রার্থীদের অনশন সোমবার ২৬ দিনে পড়ল। তাঁদের সমস্যার সুরাহায় শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের গড়া পাঁচ সদস্যের কমিটির কাছে আজ, মঙ্গলবার লিখিত অভিযোগ জানাবেন অনশনকারীরা।

এ দিন প্রকাশ ঘোষ নামে এক অনশনকারী বলেন, ‘‘ওই কমিটিতে স্কুলশিক্ষা দফতরের সচিব মণীশ জৈন, এসএসসি চেয়ারম্যান সৌমিত্র সরকার সহ পাঁচ জন রয়েছেন। আমরা নথি নিয়ে মঙ্গলবার বেলা ১টায় বিকাশ ভবনে তাঁদের কাছে যাচ্ছি। লিখিত অভিযোগ জমা দেব। নথি দিয়ে প্রমাণ করব, এসএসসি-র নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনিয়ম হয়েছে।’’

এসএসসি-র ওয়েটিং লিস্টে যে নানা অসঙ্গতি রয়েছে, মেয়ো রোডে প্রেস ক্লাবের সামনে অনশন-মঞ্চে আসা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে শুরু করে বিদ্বজ্জনদের সামনে তা তুলে ধরছেন অনশনকারীরা। এ দিন তাঁরা ফের দাবি করেন, ওয়েটিং লিস্টে শুধু র‌্যাঙ্ক জানালে হবে না, তাঁরা কত নম্বর পেয়েছেন, তা জানানো হোক।

অনশনকারীদের অভিযোগ, তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২৬ দিন অনশন করেছিলেন। আর মঙ্গলবার তাঁদের অনশন ২৭ দিনে পড়ছে। ৮৬ জন অনশনকারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। অথচ সরকারের তরফে এখনও কোনও সহানুভূতি দেখানো হয়নি। রবিবার রাতে পুলিশ ফের এসে বল প্রয়োগ করে
অনশন তোলার চেষ্টা করে। এমনকি মাথার উপরের ত্রিপলও খুলে
ফেলা হয়।

এ দিন অনশন-মঞ্চে আসেন বিজেপির জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। তিনি অনশনকারীদের সঙ্গে কথা বলে এসএসসি-র নিয়োগ নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানান। তিনি বলেন, ‘‘টাকার জোর যার, চাকরি তার— এই নীতি চলতে পারে না। এসএসসি চাকরিপ্রার্থীদের ওয়েটিং লিস্টে অনিয়ম হয়েছে। চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকার লেনদেন হয়েছে। এই অনিয়মের সঙ্গে যুক্ত আধিকারিকদের খুঁজে বার করতে হবে।’’ এই ব্যাপারে বক্তব্য জানতে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে বারবার ফোন এবং এসএমএসও করা হয়। কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি, এসএমএসেরও উত্তর দেননি।

আরও পড়ুন: দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

এ দিন মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআরের ডাকে অনশনরত চাকরি-প্রার্থীদের সমর্থনে এবং রাজ্য সরকারের অমানবিক উদাসীনতার প্রতিবাদে সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার থেকে অনশন-মঞ্চ পর্যন্ত একটি মিছিল হয়। মিছিলে যোগ দেন প্রেসিডেন্সি ও যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল কলেজ-সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা। ছিলেন বিনায়ক সেন, মীরাতুন নাহার, সব্যসাচী দেব-সহ বহু বিশিষ্ট মানুষ। এপিডিআরের দাবি, মুখ্যমন্ত্রীকে অবিলম্বে অনশনরত কর্মপ্রার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে।

এসএসসি-র অনশনকারীদের দিকে নজর দেওয়ার জন্য তৃণমূল-ঘনিষ্ঠ কবি সুবোধ সরকারও সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্টে মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। তিনি লেখেন, ‘‘আপনি
ওদের দিকে তাকালে, কালকেই আমরা একটা সুন্দর সকাল
পেতে পারি।’’