এ বার গঙ্গাসাগর মেলায় স্বচ্ছতা ও সৌন্দর্যায়নে বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গেই বাড়ানো হচ্ছে সুরক্ষা ব্যবস্থা। তারই অঙ্গ হিসেবে সিসি ক্যামেরার সংখ্যা চার গুণ বাড়ানো হচ্ছে বলে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসনের দাবি। সাগরমেলায় নাশকতার আশঙ্কা আছে বলে প্রশাসনকে সতর্ক করে দিয়েছে রাজ্য গোয়েন্দা দফতর।

গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর ঢল নামে মূলত ১২ থেকে ১৫ জানুয়ারির মধ্যে। এক পুলিশকর্তা বলেন, ‘‘ভিন্‌ রাজ্যের পুণ্যার্থীদের ভিড়ে মিশে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা নাশকতা ঘটাতে পারে। তাই সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে মেলায় অতন্দ্র নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছে।’’ কলকাতা থেকে কপিল মুনির মন্দির-সহ সাগরতটে হাজার দুয়েক সিসি ক্যামেরাই নজরদারির মূল কাজটা করবে। দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা সদর এবং নবান্নে বসে কর্তারা সিসি ক্যামেরার চোখ দিয়ে মেলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে পারবেন। দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলাশাসক ওয়াই রত্নাকর রাও বলেন, ‘‘সিসি ক্যামেরাগুলির নাম দেওয়া হয়েছে তীর্থসাথী।’’

বিপর্যয় মোকাবিলা এবং ডুবন্তকে উদ্ধার করতে বিশেষ ডুবুরিদল রাখছে উপকূলরক্ষী বাহিনী ও নৌসেনা। উপকূলরক্ষীদের হোভারক্রাফট ২৪ ঘণ্টা মোতায়েন থাকবে। থাকছে রবারের বিশেষ নৌকা, দ্রুত গতির ছোট জলযান। ডর্নিয়ের বিমান, হেলিকপ্টার থেকেও নজরদারি চালাবে উপকূলরক্ষী বাহিনী।