নতুন বেতন-কাঠামো আগেই ঘোষিত হয়েছে। এ বার নতুন বেতনক্রমের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে পদোন্নতির নিয়মবিধিও প্রকাশ করল রাজ্যের অর্থ দফতর। তাতে অবশ্য আগেকার পদোন্নতির ক্রমের বিশেষ কোনও অদলবদল হয়নি। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত নতুন আদেশনামায় বলা হয়েছে, সরকারি কর্মীরা কাজে যোগ দেওয়ার পরে আট, ১৬ এবং ২৫ বছর পূর্ণ করলে তিন বার পদোন্নতির সুযোগ পাবেন। তার সঙ্গে প্রতি বছরের ইনক্রিমেন্টও থাকছে।

অর্থ দফতরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কোনও কর্মী তাঁর ১৬ বছরের কর্মজীবনের আগেই প্রোমোশন পেতে পারেন। সে-ক্ষেত্রে উচ্চতর হারে বেতন দেওয়া শুরু হয়। সেই কর্মী ১৬ বছর পূর্ণ করার পরে অবশ্য পরবর্তী উচ্চতর বেতনক্রম আর পাবেন না। তবে তখন একটি বাড়তি ইনক্রিমেন্ট দেওয়া হবে। একই ভাবে কর্মজীবনের ২৫ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই কোনও কর্মী যদি দু’টি প্রোমোশন পেয়ে উচ্চতর বেতনক্রমে চলে যান, তা হলে ২৫ বছর পূর্ণ হওয়ার পরে তাঁকে আর পরবর্তী উচ্চতর বেতনক্রমের সুবিধা দেওয়া হবে না। তিনিও শুধু একটি অতিরিক্ত ইনক্রিমেন্ট পাবেন। সরকারি স্কুলের পাশ গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক-শিক্ষিকারাও যোগ্যতা বাড়ালে দ্বিতীয় বা তৃতীয় উচ্চতর বেতনক্রমে পৌঁছতে পারবেন। ইনক্রিমেন্টও পাবেন তাঁরা। কিন্তু শিক্ষাগত যোগ্যতা বাড়িয়ে দু’টি প্রোমোশন পেয়ে গেলে ১৬ বা ২৫ বছর পূর্ণ করার পরে নতুন করে উচ্চতর বেতনক্রমে যেতে পারবেন না। সরকারি স্কুলের সহ-শিক্ষকেরাও এই সুবিধা পাবেন। 

অর্থ দফতর জানাচ্ছে, এ রাজ্যে ১৯৯০ ও ২০০১-এ পদোন্নতির নির্দিষ্ট বিধি বা কেরিয়ার অ্যাডভান্সমেন্ট স্কিম (সিএএস) চালু হয়েছিল। ২০১৯-এ রোপা প্রকাশিত হওয়ার পরে তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সিএএসের বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। ২০১৬-র ১ জানুয়ারি বা তার পরে যাঁরা সরকারি দফতরে যোগ দিয়েছেন, তাঁরা এই সুযোগ পাবেন। অর্থাৎ বেতনক্রমের মতো পদোন্নতি বিধিও ২০১৬-র ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হবে।