রাজ্য যেন ‘ভাটপাড়া’ না হয়, আর্জি সূর্যের
ভাটপাড়ায় তৃণমূল ও বিজেপি নেতাদের ভূমিকার উদাহরণ দিয়ে তাঁর অভিযোগ, ‘‘ওখানে দু’দলের নেতারাই দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করেছেন, পরস্পরকে হুমকি দিয়েছেন। তাতে আরও প্ররোচনা ছড়িয়েছে। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।’’
surya

গণনা-পর্ব এবং তার পরে সর্বত্র শান্তি বজায় রাখার জন্য আবেদন জানালেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। ভাটপাড়া-কাণ্ড থেকে শিক্ষা নিয়ে কোনও প্ররোচনায় পা না দেওয়ার জন্য দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছেই আর্জি জানিয়েছেন তিনি। তাঁর আবেদন, ভোটে শেষ পর্যন্ত যে-ই জিতুক বা হারুক, হিংসা বা মানুষের ঘরছাড়া হওয়ার ঘটনা যেন না ঘটে। প্রশাসনেরও এই ব্যাপারে তৎপর হওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

আলিমুদ্দিনে বুধবার সূর্যবাবু বলেছেন, ‘‘উত্তেজনার নানা রকম কারণ থাকতেই পারে। কিন্তু কোনও প্ররোচনায় পা না দিয়ে শান্তিরক্ষা করাই এখন প্রধান কাজ হবে।’’ ভাটপাড়ায় তৃণমূল ও বিজেপি নেতাদের ভূমিকার উদাহরণ দিয়ে তাঁর অভিযোগ, ‘‘ওখানে দু’দলের নেতারাই দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করেছেন, পরস্পরকে হুমকি দিয়েছেন। তাতে আরও প্ররোচনা ছড়িয়েছে। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।’’ ভাটপাড়ার পুনরাবৃত্তি যাতে আর কোথাও না হয়, তা দেখার জন্য সকলের কাছে আবেদন জানিয়েছেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক। তাঁর কথায়, ‘‘জয়ের উচ্ছ্বাস বা পরাজয়ের হতাশায় না গিয়ে গণনা কেন্দ্রে আমাদের কর্মীদের যেমন দায়িত্ব পালন করতে হবে, তার বাইরে বাকিদেরও শান্তি বজায় রেখে নিজেদের কাজ করতে হবে।’’ উত্তর ২৪ পরগনার জেলাশাসকের কাছে ভাটপাড়ায় শান্তি ফেরানোর জন্য ইতিমধ্যেই দরবার করেছে বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে সিপিএমের জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর একটি প্রতিনিধিদল।

জনমত বা বুথ ফেরত সমীক্ষায় এ বার রাজ্যে লোকসভা ভোটে বামেদের কিছু প্রাপ্তির ইঙ্গিত নেই। এই নিয়ে সূর্যবাবু অবশ্য এ দিনও দাবি করেছেন, ‘‘কেন্দ্রে বিজেপি সরকারকে পরাস্ত করার লক্ষ্যেই জনমত আসবে। বামপন্থীদের শক্তিও বাড়বে।’’ একই সঙ্গে অবশ্য ‘পরাজয়ের হতাশা’য় না ডুবে নিজেদের রাজনৈতিক কর্তব্যে অবিচল থাকার বার্তাও বাম কর্মী-সমর্থকদের দিয়ে রেখেছেন সূর্যবাবু।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত