ভারত তথা দুনিয়া জো়ড়া অসহিষ্ণুতার বাতাবরণে স্বামীজির প্রাসঙ্গিকতার কথা তুললেন প্রাক্তন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গাঁধী।

শুক্রবার, স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে কল্যাণীর সেন্ট্রাল পার্কে টাউন ক্লাবের আয়োজিত ২১তম বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসবের উদ্বোধন করেন গোপালকৃষ্ণ। এসেছিলেন সস্ত্রীক। ছিলেন চলচ্চিত্রকার গৌতম ঘোষও।

মহাত্মা গাঁধীর দৌহিত্র তথা প্রাক্তন রাজ্যপাল গোপালৃষ্ণ তাঁর বক্তব্যের শুরুতেই বলেন, ‘‘আজ ১২ জানুয়ারি স্বামীজির জন্মদিন। ভারত-সহ গোটা দুনিয়ায় যে অসহিষ্ণুতা প্রকট হয়েছে, স্বামীজি একে বলেছিলেন ভয়ঙ্কর।’’ এ দেশের মিশ্র সংস্কৃতির কথা তুলে প্রাক্তন রাজ্যপাল বলেন, ‘‘হিন্দু-মুসলিম মিলেই দেশের ভবিষ্যৎ তৈরি করবে। এ দেশের সংস্কৃতিতে সংখ্যালঘুদেরও অবদান রয়েছে।’’ দেশ-গঠনে বাংলার ভূমিকার কথাও তুলে ধরেন গোপালকৃষ্ণ। মনে করিয়ে দেন, ‘‘বাংলা থেকে নির্বাচিত হয়েই অম্বেডকর গণ পরিষদে গিয়েছিলেন। মূল সংবিধানে অলঙ্করণ করেছিলেন নন্দলাল বসু।’’ স্বাধীন ভারতের প্রথম তিন জন ভারতরত্ন প্রাপকের সঙ্গেও বাংলার যোগাযোগ ছিল বলে তিনি মনে করিয়ে দেন। গৌতম বলেন, ‘‘বাঙালি মুসলিমরা না এগোলে সামগ্রিক ভাবে রাজ্যের উন্নতি হবে না।’’ প্রায় আড়াইশো স্টল নিয়ে শুরু হওয়া এই উৎসব চলবে দশ দিন ধরে।