অনাস্থা বৈঠককে ঘিরে মঙ্গলবার বনগাঁ পুরসভার গোলমালের পিছনে শাসক দলের প্রশ্রয় আছে বলে মনে করেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়। বুধবার বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের মামলা চলাকালীন বিচারপতি বনগাঁ প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘‘কালকের (মঙ্গলবার) ঘটনার জন্য দায়ী বনগাঁ পুরসভার চেয়ারম্যান এবং তাঁর অনুগামীরা। পুলিশ কিছু করেনি।’’

সব্যসাচীর মামলায় বনগাঁর প্রসঙ্গ তোলায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিধাননগর পুরসভার চেয়ারপার্সনের আইনজীবী ও তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। বিচারপতির উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘‘সব দোষ শাসক দলের? অনেক বিচারপতিও আতসকাচের তলায় রয়েছেন। রাজ্য সরকারের কাছ থেকে জমি, ফ্ল্যাট নেন অনেকেই। কে কী ভাবে বিচারপতি হন, তা জানা আছে। বিজেপির ঘোড়া কেনাবেচা নিয়ে সমালোচনা নেই  কারও মুখে। অনেক আইনজীবী আয়কর দেন না। তাঁদের সমালোচনা হয় না।’’ এ কথা বলেই বেরিয়ে  যান কল্যাণবাবু।

তখন এজি-সহ সরকারের অনেক আইনজীবী আদালতে ছিলেন। ছিলেন সব্যসাচীর আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য। তাঁদের উদ্দেশে বিচারপতি মন্তব্য করেন, ‘‘আমি আইনজীবী অরুণপ্রকাশ চট্টোপাধ্যায়ের ভাগ্নি। আমার বা আমাদের পরিবারের সততা নিয়ে কেউ কোনও দিন প্রশ্ন তোলেননি। কাজ ছাড়া আমি কিছু জানি না। কোন বিচারপতি কী করেছেন, তা আমার জানা নেই।’’ 

বিকাশবাবু রাতে বলেন, ‘‘কল্যাণবাবুর পক্ষে এটা অশোভন হয়েছে।’’ আর কল্যাণবাবু বলেন, ‘‘সব দোষ শাসক দলের হবে কেন? সেই কারণেই বলেছি।’’