লোকসভা ভোটে পুরুলিয়ায় হেরেছে তৃণমূল। সেখানে রেশন-দুর্নীতির অভিযোগ আছে বলে শুক্রবার বিধানসভায় জানালেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তাঁর বক্তব্য, ‘‘পুরুলিয়া নিয়ে কয়েকটি অভিযোগ এসেছে। রেশন ডিলাররা ১৫০-২০০ গ্রাম চাল কম দিচ্ছে। আমাদের দফতরের প্রতিনিধি দল গিয়েছে। কিছু ডিলারকে শো-কজ করা হয়েছে। বিষয়টা সাসপেন্ড করার জায়গায় যাচ্ছে।’’ মন্ত্রী জানান, জঙ্গলমহলে রেশন-দুর্নীতি ঠেকাতে কিছু পদক্ষেপ করছে রাজ্য সরকার। যেমন—রেশন দোকানগুলিতে নজরদারি চালানোর জন্য পাঁচটি দোকান পিছু এক জন করে পরিদর্শক রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ দিন বিধানসভায় খাদ্য বাজেটের আলোচনায় কংগ্রেস বিধায়ক নেপাল মাহাতো মন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, ‘‘পুরুলিয়ায় অনেক মানুষকে ১৬ থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে গিয়ে রেশন আনতে হয়। এর পরে আর আদিবাসীদের সরকারের উপর আস্থা থাকবে? এই সব কারণেই তো জঙ্গলমহলে আপনাদের অবস্থা খারাপ হয়েছে!’’ নেপালবাবুর আরও পরামর্শ, ‘‘রেশনে আটার বদলে গম দেওয়া হোক। না হলে আটা কেলেঙ্কারি থেকে কখনওই মুক্ত হওয়া যাবে না।’’ পরে জবাবি ভাষণে মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয়বাবু এ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের তথ্য জানান। আর ‘আটা-কেলেঙ্কারি’ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আমরাও রেশনে গমই দিতে চাই। কিন্তু কেন্দ্রের অন্ত্যোদয় প্রকল্পে বলা আছে, গম নয়, আটাই দিতে হবে।’’ খাদ্যসাথী প্রকল্পে আরও বেশি মানুষকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য মন্ত্রীর কাছে আর্জি জানান তৃণমূল বিধায়ক কল্লোল খাঁ।

মন্ত্রী এ দিন আরও জানান, রেশন ব্যবস্থায় রাজ্যের মানুষের অভিযোগ জানতে তিনটি হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর দেওয়া হবে। জেলায় জেলায় চার সদস্যের নজরদারি কমিটি তৈরি হবে। তবে একই সঙ্গে মন্ত্রীর বক্তব্য, অনেকে যে রেশন দোকান থেকে সস্তার চাল কিনে তা বেশি দামে বাজারে বিক্রি করেন, সেই অভিযোগও তাঁর কাছে আছে।