দার্জিলিং হিলস ইউনিভার্সিটির নাম কেন কবি ভানুভক্তের নামে রাখা হল না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলল বামফ্রন্ট।

দার্জিলিঙে ‘গ্রিনফিল্ড ইউনিভার্সিটি’ তৈরির জন্য এক বছর আগে বিল পাশ হয়েছিল বিধানসভায়। সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম বদলে ‘দার্জিলিং হিলস ইউনিভার্সিটি’ রাখার জন্য বুধবার বিধানসভায় ‘দ্য গ্রিনফিল্ড ইউনিভার্সিটি (অ্যামেন্ডমেন্ট) বিল, ২০১৯ পাশ করা হয়েছে। ওই বিল নিয়ে আলোচনায় শিলিগুড়ির সিপিএম বিধায়ক অশোক ভট্টাচার্য বলেন, দার্জিলিঙের মানুষের আবেগকে মর্যাদা দিয়ে নেপালি কবি ভানুভক্তের নামে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণ হওয়া উচিত। ওই দাবিতে একটি সংশোধনীও দেন বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী। সরকার পক্ষ অবশ্য তা গ্রহণ করেনি। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় পাল্টা প্রশ্ন তোলেন, বাম জমানায় ভানুভক্তের নামে বিশ্ববিদ্যালয় হয়নি কেন? পার্থবাবু বামেদের উদ্দেশে আরও বলেন, ‘‘পাহাড়ের মানুষ চাইছেন বলেই নাম বদলে দার্জিলিং হিলস ইউনিভার্সিটি করা হল। এ ভাবে কথা বললে পাহাড়ের মানুষকে অসম্মান করা হয়। ভানুভক্ত অতি শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি। আমরা ভবিষ্যতে তাঁর নামে নিশ্চয়ই অন্য কিছু করব।’’

পরে বিধানসভার মিডিয়া কর্নারে সুজনবাবু বলেন, ‘‘পঞ্চানন বর্মা, বীরসা মুণ্ডার নামে বিশ্ববিদ্যালয় হতে পারলে ভানুভক্তের নামে তা করতে বাধা কোথায়? আমরা বলেছিলাম, প্রয়োজনে বিলটা সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানো হোক। সরকার মানল না।’’

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও।সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।