দেওয়াল লেখায় ভুল, ধরালেন প্রার্থী
কালনা, কাটোয়া, পূর্বস্থলীর মতো নানা এলাকায় বিজেপি-র তরফে দেওয়াল লিখনে দলের প্রার্থীর নামের পাশে ‘এক্স-আইএএস’ লেখা হয়েছে। শনিবার পরেশবাবু নিজেই জানান, তা ভুল হয়েছে।
Wall Writing

কালনার এক দেওয়ালে সেই লিখন (চিহ্নিত)। নিজস্ব চিত্র

তাঁর সমর্থনে দেওয়াল লিখনে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য রয়েছে, জানালেন বর্ধমান পূর্বের বিজেপি প্রার্থী পরেশচন্দ্র দাস। কেন্দ্রের নানা এলাকায় দেওয়াল লিখনে দলের কর্মী-সমর্থকেরা তাঁকে ‘এক্স-আইএএস’ (প্রাক্তন আইএএস অফিসার) বলে উল্লেখ করেছেন। পরেশবাবু জানান, এর বদলে আইসিএএস (ইন্ডিয়ান সিভিল অ্যাকাউন্টস সার্ভিস) লেখা উচিত ছিল। কর্মীদের বোঝার গোলমালে এই ভুল হয়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

কালনা, কাটোয়া, পূর্বস্থলীর মতো নানা এলাকায় বিজেপি-র তরফে দেওয়াল লিখনে দলের প্রার্থীর নামের পাশে ‘এক্স-আইএএস’ লেখা হয়েছে। শনিবার পরেশবাবু নিজেই জানান, তা ভুল হয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘লেখা উচিত ছিল আইসিএএস। দলের নেতা-কর্মীদের ওই সব দেওয়ালে ভুল সংশোধন করে দিতে বলা হয়েছে।’’ 

পরেশবাবু জানান, ১৯৮৮ সাল থেকে আইসিএস যোগ্যতা নিয়ে অর্থ মন্ত্রক, গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রক, কলকাতা কাস্টমস-সহ ১৮টি গুরুত্বপূর্ণ দফতরের দায়িত্ব সামলেছেন। ২০১৩ সালে ভাল কাজের জন্য রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের কাছ থেকে পুরস্কারও পান। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে দাবি করছেন, পরেশবাবু কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথের সিংহের সহকারী হিসাবেও কাজ করেছেন। কিন্তু বিজেপি প্রার্থী জানান, তিনি কখনও ওই পদে কাজ করেননি। সেই সঙ্গেই তিনি বলেন, ‘‘কেউ যদি আমার নামের পাশে এক্স-আইসিএএস লেখেন, তাহলেও বিতর্কিত হবে। আমি অবসর নিয়েছি ঠিকই, তবে এখনও আইসিএএস।’’

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

এ দিন প্রার্থী ও বিজেপি নেতারা অভিযোগ করেন, পঞ্চায়েত ভোটে তাদের বেশির ভাগ জায়গায় তাঁদের প্রার্থী দিতে দেয়নি শাসকদল। পরেশবাবুর হুঁশিয়ারি, ‘‘এ বার এমনটা হলে দল রাস্তায় নামবে।’’ তিনি অভিযোগ করেন, ইতিমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় জোর করে দেওয়াল দখল করছে তৃণমূলের লোকজন। কাটোয়ার পলাশিতে একটি দেওয়ালে তাঁর নাম এবং দলীয় প্রতীকের পাশে ঘাসফুল এঁকে দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনকে জানানো হচ্ছে। দলের বর্ধমান পূর্ব কেন্দ্রের সভাপতি কৃষ্ণ ঘোষের অভিযোগ, ‘‘এখন থেকে দলীয় কর্মীদের মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। দেওয়াল লিখন-সহ রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বাধা দিতে নানা এলাকায় হুমকি দেওয়া হচ্ছে কর্মীদের।’’

বিজেপি-র অভিযোগ অবশ্য আমল দিতে নারাজ তৃণমূলের নেতারা। দলের নেতা তথা জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি দেবু টুডুর বক্তব্য, ‘‘ভোটে ফল ভাল হবে না জেনেই এখন থেকে অজুহাত দেওয়া শুরু করেছে বিজেপি।’’

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত