অ্যাসিডের ক্ষত নিয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন কংগ্রেসকে ভোট দেওয়া সেই আনসুরা
হাসপাতাল সূত্রে খবর, শুক্রবার তাঁর অবস্থার আরও অবণতি হয়। তার পর থেকেই তাঁকে আইসিইউ-তে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
Acid

প্রতীকী ছবি।

কংগ্রেসকে ভোট দেওয়ার ‘অপরাধে’ গলায় অ্যাসিড ঢেলে দেওয়া সেই মুর্শিবাদাবাদের ইসলামপুরের সেই আনসুরার অবস্থা সঙ্কটজনক। মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে তাঁর চিকিৎসা চলছিল। আজ শুক্রবার তাঁকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

আনসুরার ‘অপরাধ’ ছিল ভাইয়ের দল কংগ্রেসকে ভোট দেওয়া। আর সেটাই তৃণমূল সমর্থক স্বামী তাহাসেন শেখ মেনে নিতে পারেননি। অভিযোগ উঠেছিল, বেধড়ক মারধর করে গলায় অ্যাসিড ঢেলে দেন স্বামী তাহাসেন শেখ। গত মঙ্গলবারের ওই ঘটনার পর থেকেই তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। হাসপাতাল সূত্রে খবর, শুক্রবার তাঁর অবস্থার আরও অবণতি হয়। তার পর থেকেই তাঁকে আইসিইউ-তে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

রানিনগরের কংগ্রেস বিধায়ক ফিরোজা বেগম বলেন, ‘‘আনসুরার অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, ওঁর শ্বাসনালি ও খাদ্যনালিতে সংক্রমণ ছড়িয়েছে। অস্ত্রোপচার করতে হবে। আমরা সব সময় ওঁর পাশে আছি। সব রকম সাহায্যের চেষ্টা করছি।’’

মঙ্গলবার রাজ্যে তৃতীয় দফার ভোটগ্রহণ হয়। রাজ্যের মোট পাঁচটি আসনের সঙ্গে ভোট হয় মুর্শিদাবাদ কেন্দ্রেও। এই কেন্দ্রের ইসলামপুরের কেশবপুর গ্রামের বাসিন্দা আনসুরাও নিজের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেছেন। বুথে গিয়ে ভোট দিয়ে এসেছিলেন কংগ্রেস প্রার্থীকে। বাড়ি ফিরে তৃণমূল সমর্থক স্বামীর প্রশ্নের উত্তরে কংগ্রেসকে ভোট দেওয়ার কথা বলেছিলেন আনসুরা।


আরও পড়ুন: ঋণখেলাপিদের তালিকা প্রকাশ করতে হবে, রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে ‘শেষ সুযোগ’ দিল সুপ্রিম কোর্ট

আরও পড়ুন: মাঝ আকাশে গোলযোগ, ফিরল রাহুলের বিমান

আনসুরার বাপেরবাড়িও কেশবপুর গ্রামে। আগে দুই পরিবারই কংগ্রেসের সমর্থক হলেও বছর দেড়েক আগে আনসুরার স্বামী তাহাসেন ভিড়ে যান তৃণমূলের দিকে। রাজনৈতিক বিভেদ প্রভাব ফেলে সম্পর্কেও। দুই পরিবারের মধ্যে বিবাদ এলাকাবাসীর অজানা ছিল না। ভোটের মরশুমে সেই সঙ্ঘাত চরমে ওঠে। আর এই বিবাদে স্ত্রী আনসুরার সমর্থন যে বাপের বাড়ির দিকে ছিল, তা আঁচ করেছিলেন তাহাসেন। তাই ভোট দিয়ে ফিরতেই স্বামীর প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় আনসুরাকে। ‘কাকে ভোট দিয়েছ’— এই প্রশ্নে আনসুরাও অকপটেই বলে দিয়েছিলেন হাতে চিহ্নেই বোতাম টিপেছেন তিনি।

কিন্তু সেটাই তাঁর কাল হল। অভিযোগ, তাহাসেন এবং তাঁর পরিবারের লোকজন বেধড়ক মারধর করেন আনসুরাকে। চুলের মুঠি ধরে শুরু হয় ফেলে পেটানো। সেই মারধরের ফাঁকেই তাহাসেন ঘর থেকে অ্যাসিডের বোতল এনে আনসুরার মুখে ঢেলে দেন বলে অভিযোগ। মঙ্গলবার দুপুরে ওই ঘটনার পরই আশঙ্কজনক অবস্থায় আনসুরাকে ইসলামপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে।

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত