বড় শরিককে ‘দুষলেন’ ক্ষিতি
শুক্রবার কলকাতা থেকে বামফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হয়েছে৷
khiti Goswami

—ফাইল চিত্র।

প্রার্থী তালিকা ঘোষণা নিয়ে দেরি নিয়ে বামফ্রন্টের বড় শরিক সিপিএমের বিরুদ্ধে ক্ষোভ জানালেন আরএসপির রাজ্য সম্পাদক ক্ষিতি গোস্বামী।

শুক্রবার কলকাতা থেকে বামফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হয়েছে৷ আলিপুরদুয়ার লোকসভা কেন্দ্রে বামেদের প্রার্থী হয়েছেন আরএসপির মিলি ওরাওঁ। প্রার্থী হিসাবে তাঁর নাম ঘোষণার পর শনিবার আলিপুরদুয়ারে আসেন দলের রাজ্য সম্পাদক ক্ষিতি গোস্বামী। 

দল সূত্রে জানা গিয়েছে, মূলত, লোকসভা নির্বাচনে প্রচারের রণকৌশল ঠিক কী হবে তা নিয়ে দলের জেলা পার্টি অফিসে নেতা-কর্মীদের নিয়ে একটি বৈঠক করেন তিনি। আর সেখানেই তিনি কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতা নিয়ে আলোচনা হতে দেরি ও তার জেরে বামফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা নিয়ে দেরির জন্য বড় শরিক সিপিএমের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

ক্ষিতির অভিযোগ,  “প্রার্থী তালিকা ঘোষণা বা প্রচার নিয়ে তৃণমূলের আগে থেকেই একটা পরিকল্পনা ছিল। সেজন্যই প্রার্থীদের নাম ঘোষণার পর ওই রাত থেকে তৃণমূলের নীচু তলার নেতা-কর্মীরা প্রচারে নেমে পড়েন। আমরাও আমাদের প্রার্থীদের নাম বামফ্রন্ট চেয়ারম্যানের কাছে কয়েকদিন আগেই দিয়ে রেখেছিলাম। অথচ, কংগ্রেসের সঙ্গে সিপিএমের আসন সমঝোতা নিয়ে আলোচনা চলতে থাকায় তা ঘোষণায় দেরি হতে থাকে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ফ্রন্টের সব শরিক দলের নীচুতলাতেই প্রার্থী তালিকা ঘোষণা নিয়ে দেরির জন্য ক্ষোভ ও প্রশ্ন দানা বাঁধতে শুরু করে। কারণ, এটা তো ঠিকই, প্রার্থীর নাম ঘোষণা না হলে তারা কাকে নিয়ে প্রচার করবেন?”

তবে শেষ পর্যন্ত বামেদের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হয়ে যাওয়ায় এখন থেকেই আর সময় নষ্ট না করে এ দিন দলের নেতা-কর্মীদের লোকসভা ভোটের প্রচারে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়তে নির্দেশ দেন ক্ষিতি। বিশেষ করে চা বলয় অধ্যুষিত আলিপুরদুয়ারে বাগানগুলি সাবধানে ও সতর্ক হয়ে প্রচার চালিয়ে মানুষকে কাছে টানতে কর্মীদের বার্তা দেন তিনি।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত