১১টি এফআইআর, কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী যেন ‘বাহুবলী’!
২৩ মে লোকসভার নির্বাচনী ফলাফল কী হবে তা সময় বলবে। তবে মনোনয়নের সঙ্গে প্রার্থীদের জমা দেওয়া হলফনামার তথ্যে ‘বাহুবলে’ ইতিমধ্যেই এগিয়ে কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক।
NISHIT PRAMANIK

কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক। - নিজস্ব চিত্র

গত দশ বছরে তাঁর বিরুদ্ধে রয়েছে ১১টি এফআইআর। সেখানে খুন থেকে শুরু করে খুনের চেষ্টা, ডাকাতি, চুরির মাল কেনার মতো মারাত্মক সব অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। মামলার বহর দেখলে মনে হবে রীতিমতো‘বাহুবলী’।

২৩ মে লোকসভার নির্বাচনী ফলাফল কী হবে তা সময় বলবে। তবে মনোনয়নের সঙ্গে প্রার্থীদের জমা দেওয়া হলফনামার তথ্যে ‘বাহুবলে’ ইতিমধ্যেই এগিয়ে কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক।

সোমবার তাঁর জমা দেওয়া হলফনামায় ভেট্টাগুড়ির বাসিন্দা নিশীথ ঘোষণা করেছেন, শুধু দিনহাটা থানাতে তাঁর বিরুদ্ধে রয়েছে ৮টি মামলা। জেলার কোতোয়ালি থানায় রয়েছে একটি মামলা এবং পাশের জেলা আলিপুরদুয়ারেও রয়েছে দু’টি মামলা। খুন, ডাকাতি, অস্ত্র আইনে একাধিক মামলা থাকলেও কোনও মামলাতেই তাঁর বিরুদ্ধে চার্জ গঠন হয়নি। কোনও মামলাতেই তিনি দোষীও সাব্যস্ত হননি।

তাঁর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী তৃণমূল কংগ্রেসের পরেশ অধিকারী। তিনিও হলফনামা পেশ করেছেন। তিনি অবশ্য তাঁর হলফনামায় ঘোষণা করেছেন যে তাঁর বিরুদ্ধে কোনও ফৌজদারি মামলা নেই। তবে কোচবিহারের লড়াইতে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী বামফ্রন্ট প্রার্থী গোবিন্দ রায় জানিয়েছেন, তাঁর বিরুদ্ধে দু’টি ফৌজদারি মামলা রয়েছে। দু’টি মামলাই প্রতারণার।

আরও পড়ুন- আডবাণী এখনও নীরবই, টিকিট না পাওয়ার ক্ষোভ কিন্তু গোপন রাখলেন না জোশী

আরও পড়ুন- কেমন কাজ করল মোদী সরকার? সমীক্ষা বলল, প্রায় সব ক্ষেত্রে মাঝারিরও নীচে নম্বর দিচ্ছেন মানুষ​

যদিও নিশীথের এই ‘প্রোফাইল’ই অনেকাংশে সম্পদ মনে করছেন তাঁর অনুগামীরা। নিশীথ ঘনিষ্ঠদের দাবি, ভেট্টাগুড়ির বিট্টুর (নিশীথের ডাক নাম) বিরুদ্ধে অধিকাংশই মিথ্যা মামলা। দিনহাটা এলাকার এক নিশীথ সমর্থক বলেন, মূলত ব্যবসায়ী ছিলেন বিট্টু। জেলার তৃণমূল যুব কংগ্রেসের এক সময়ের সভাপতি রাণা বসুর হাত ধরে নিশীথের রাজনীতিতে প্রবেশ। রাণা বসুর সঙ্গে থেকেই তিনি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠেছিলেন। নিশীথের বিরোধীরা যখন তাঁকে রীতিমতো‘বাহুবলী’ বলছেন তখন বিজেপি প্রার্থীর অনুগামীদের দাবি, পঞ্চায়েত ভোটের সময় দল দুর্নীতিপরায়ণ নেতাদের টিকিট দিয়েছিল। তার প্রতিবাদ করে নিশীথ নিজেদের অনুগামীদের নিয়ে নির্দল প্রার্থীদের জিতিয়ে আনেন। তাঁদের অভিযোগ, ওই সময় থেকে নিশীথের উত্থানের জন্যই জেলার এক শ্রেণির তৃণমূল নেতা ষড়যন্ত্র করে একের পর এক মামলা করেছেন নিশীথের বিরুদ্ধে। হলফনামা অনুযায়ী প্রায় কোটি টাকার মালিক নিশীথ মাধ্যমিক পাশ। তাঁর রোজগারের উৎস ব্যবসা হলেও তিনি একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষকের চাকরি করেন।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত