চমক শুধু অনুব্রত মণ্ডলই নন। এ বার দায়িত্ব বাড়ছে করিমপুরের বিধায়ক মহুয়া মিত্রেরও। 

জেলা পরিষদে বিজেপির কাছে হারানো দু’টি আসনই শুধু নয়, সেই সঙ্গে কৃষ্ণনগর পুরসভার প্রাক্তন পুরপ্রধান অসীম সাহার পাশাপাশি ওই লোকসভা কেন্দ্রের জন্য যুগ্ম দায়িত্ব  দেওয়া হয়েছে মহুয়াকে। 

হবিবপুরের প্রশাসনিক বৈঠকেই মহুয়াকে নাকাশিপাড়া ও কৃষ্ণনগর-১ ব্লকের জেলা পরিষদের পরাজিত দু’টি আসনের দায়িত্ব দেন মমতা। পরে কৃষ্ণনগর সার্কিট হাউসে দলীয় বৈঠকে কৃষ্ণনগর লোকসভার জন্য যুগ্ম দায়িত্ব দেন। দুটো দায়িত্বই যথেষ্ট কঠিন বলে মনে করছেন দলের প্রবীণ নেতারা। কারণ সাংগঠনিক দুর্বলতার সঙ্গে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণেই পঞ্চায়েত ভোটে হারাতে হয়েছিল জেলা পরিষদের দু’টি আসন। সেই ফাঁড়া কাটিয়ে বিজেপিমুখী ভোটারদের ফিরিয়ে আনাটা সহজ কাজ নয়। 

আবার কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্র এলাকায় পঞ্চায়েত ভোটে বিজেপির ভাল ফল করা নিয়েও তিন্তায় রয়েছেন তৃণণীলের নেতারা। এই কেন্দ্রের জন্য বিজেপি যে সর্বশক্তি নিয়ে ঝাঁপাবে তাতে সন্দেহ নেই। ফলে এই কেন্দ্রও মহুয়ার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে। যদিও দলের কর্মীদের একটা বড় অংশ বলছেন, সামান্য কয়েক দিন আগে করিমপুরে পা রেখে সমস্ত গোষ্ঠী কোন্দলকে উপেক্ষা করে যে ভাবে করিমপুর বিধানসভায় জিতে দেখিয়েছেন তিনি, তাতে মনে হতেই পারে যে সংগঠনটা তিনি ভালই বোঝেন। দলীয় সূত্রের খবর, করিমপুর বিধানসভা এলাকায় বুথ স্তরে যে ভাবে সংগঠনকে শক্তিশালী করে তুলেছেন মহুয়া তাতে নেত্রী খুশি। এ দিন তিনি প্রশাসনিক বৈঠকে মহুয়ার হালকা প্রশংসাও করেন তিনি। রাতে মহয়া শুধু বলেন, “দিদি আমায় আগেও যা দায়িত্ব দিয়েছেন তা আমি সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে  পালন করেছি। এ বারও তা করব।”