তৃণমূলের সভায় আসার বাস আটকে দেওয়ার হুমকি দিয়ে আগেই উত্তাপ বাড়িয়ে ছিলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রবিবার দু’একটি জেলায় এমন বিক্ষিপ্ত ঘটনাও ঘটেছে। আর তারই প্রসঙ্গ টেনে এনে তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিনের সমাবেশে বিজেপির উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘আগামী দিন মিটিং মিছিল আপনাদেরও করতে হবে। মানুষ যদি পাল্টা দেয়, তৃণমূল যদি পাল্টা দেয়, পারবেন তো সভা করতে? আমরা ভদ্রতা করি। তাই আপনাদের এত বড় বড় কথা।’’

মুখ্যমন্ত্রীর এ দিনের বক্তব্য, ‘‘শুনেছি গুড়াপে বাস থেকে আমাদের লোকেদের নামিয়েছে। মেদিনীপুর, আরামবাগেও এ সব হয়েছে। আগামীকালই ও সব জায়গায় পাল্টা মিছিল হবে। অ্যাকশন নেওয়া হবে।’’

এর পরেই উত্তরপ্রদেশে সাম্প্রতিক ‘গণহত্যা’র প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মুখ্যমন্ত্রী জানান, সেখানে প্রিয়ঙ্কা গাঁধীকেও ঢুকতে দেওয়া হয়নি। অথচ বাংলায় কোথাও ১৪৪ ধারা জারি থাকলে ৪০টা গাড়ি নিয়ে বিজেপির নেতারা ঢুকে পড়েন। তাঁদের বাধা দেওয়া হয় না।

এই সূত্রেই বিজেপিকে হুঁশিয়ারি দিয়ে মমতা বলেন, ‘‘২০০৯ সালে আমরা ২৬টা আসন পেয়েছিলাম। তবু কারও দলীয় কার্যলয়ে হাত দিইনি। ২০১১ সালে ৩৪ বছর লড়াই করে ক্ষমতায় এসেছিলাম। বিজেপি, আগে ৩৪ বছর লড়াই করো। তারপর কথা বলবে।’’

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রত্যুত্তরে এ দিন দিলীপবাবু বলেন, ‘‘চ্যালেঞ্জ করছি, মিটিং মিছিল করবই। পারলে আটকান। আমরা প্রস্তুত আছি।’’ একই সঙ্গে তৃণমূলের বাস আটকানোর জবাবে তাঁর বক্তব্য, ‘‘আমরা এরকম কিছু করিনি। চাইলে অবশ্যই করতে পারতাম।’’