স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে তিনি যে জাতীয় ছুটি চান, সেটা স্পষ্ট করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর প্রশ্ন, ‘‘স্বামীজি তো শুধু বাংলার নন। তিনি সকলের। তা হলে তাঁর জন্মদিনে কেন্দ্রীয় সরকার জাতীয় ছুটি ঘোষণা করবে না কেন?’’

গঙ্গাসাগর মেলার প্রাক্কালে বুধবার বাবুঘাটে ‘বিবেক চেতনা উৎসব’-এর সূচনা করে মুখ্যমন্ত্রী জানান, রাজ্য জুড়ে স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন পালন করা হবে। এ দিন থেকেই গোটা রাজ্যে সেই অনুষ্ঠান শুরু হয়ে গেল। চলবে ১২ জানুয়ারি, বিবেকানন্দের জন্মদিন পর্যন্ত।

এ দিনের অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, রাজ্যের ৩৪১টি ব্লক, ১১৮টি পুরসভা, ছ’টি পুর নিগম এবং কলকাতা পুরসভার ১৪৪টি ওয়ার্ডে বিবেক চেতনা উৎসব পালন করার জন্য এক কোটি ৯০ লক্ষ টাকা অনুদান দেওয়া হচ্ছে। একই ভাবে ২৩ জানুয়ারি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনও পালন করা হবে সারা রাজ্যে। তার জন্য খরচ ধরা হয়েছে এক কোটি ৩০ লক্ষ টাকা।

মমতা আরও জানান, আগামী বছর স্বামীজির শিকাগো বক্তৃতার ১২৫ বছর পূর্ণ হচ্ছে। সেই উপলক্ষে সল্টলেক স্টেডিয়ামে সারা রাজ্য থেকে এক লক্ষ ছাত্র-যুবককে সমবেত করে অনুষ্ঠান হবে। ওই অনুষ্ঠানের জন্য এ দিন একটি কমিটিও গড়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে সেই কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে। বিবেকানন্দের পৈতৃক আবাসের সম্পাদক স্বামী পূর্ণাত্মানন্দ এবং রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের সহ-সাধারণ সম্পাদক স্বামী বলভদ্রানন্দও ওই কমিটির সদস্য। শিক্ষা দফতরের সঙ্গে সঙ্গে ওই কমিটিতে ক্রীড়া দফতরকেও সামিল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।