জিমন্যাস্টিকে জাতীয় স্তরের সোনার পদক রয়েছে তাঁর। এলাকার বাসিন্দাদের তাঁকে নিয়ে গর্বের অন্ত নেই। তবে সেই জিমন্যাস্টকেই শিকার হতে হল শ্লীলতাহানির। পুলিশের কাছে এমনটাই অভিযোগ সোনারপুরের বালিপুকুরের বাসিন্দা ওই দশম শ্রেণির ওই ছাত্রীর পরিবারের। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ।

সোনারপুর ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের ঘটনা। পুলিশের কাছে ওই ছাত্রীর পরিবার জানিয়েছে, ২৫ ফেব্রুয়ারি, রবিবার সন্ধ্যায় মাসি এবং মাসির ছেলের সঙ্গে স্থানীয় কিশোর সংঘের মাঠে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখতে গিয়েছিল ওই ছাত্রী। সেই অনুষ্ঠান দেখে রাত সাড়ে ১২টা নাগাদ বাড়ি ফিরছিলেন তাঁরা। সেই সময় কয়েক জন যুবক তাঁদের কটূক্তি করে বলে অভিযোগ। রাত গভীর হওয়ায় সেখান থেকে তাঁরা চলে আসেন। পর দিন সকালে স্থানীয় ওয়ার্ডের তৃণমূলের সভাপতি উত্তম সরকারের কাছে পুরো ঘটনার কথা জানাতে গেলে ওই ছাত্রীর দাদাকে মারধর করে বলে অভিযোগ।

ওই ঘটনার পর সোমবার সন্ধ্যায় স্কুটিতে চড়ে মায়ের সঙ্গে টিউশন পড়তে গিয়েছিল সে। স্থানীয় মিলন সমিতির কাছে মায়ের সামনেই স্কুটি দাঁড় করাতে বলে বেশ কিছু যুবক। অভিযোগ, তাতে রাজি না হওয়ায় স্কুটি থেকেই ওই ছাত্রীকে টেনে নামানোর চেষ্টা করা হয়। এমনকী, পিছন থেকে গলায় ওড়না ধরে টেনে নামিয়ে জঙ্গলে টেনে নিয়ে যাওয়ারও চেষ্টা করে ওই যুবকেরা। ওই ছাত্রীর মা বাধা দিলে আরও লোকজন এসে উপস্থিত হয় সেখানে। তাঁদেরকে মারধর করে বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুন: রানিকাহিনি! বিপাকে চিরঞ্জিৎ

আরও পড়ুন: 

ঘটনার পর সোনারপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয়। তবে পরিবারের অভিযোগ, ঘটনাস্থলে পৌঁছলেও ওই যুবকদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি পুলিশ। যদিও স্থানীয় তৃণমূল নেতা উত্তম সরকার পুরো ঘটনার কথাই অস্বীকার করেছেন।