বিয়ের নিবন্ধীকরণ করতে এক বারের বেশি যেতে হবে না ম্যারেজ রেজিস্ট্রারের কাছে। রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক জানিয়েছেন, অনলাইনেই হবে ওই নিবন্ধীকরণের প্রায় সব কাজ।

অনলাইনে বিয়ে রেজিস্ট্রেশনের ভাবনাচিন্তা কিছু দিন ধরেই করছিল সরকার। এ বার তা রূপায়িত হতে চলেছে। মন্ত্রীর কথায়, ‘‘এই ব্যবস্থা মার্চের শুরুতেই চালু হয়ে যাবে।’’ আইন দফতর জানায়, প্রথমে আবেদনকারীরা বিয়ের নিবন্ধীকরণের জন্য নথিপত্র-সহ অনলাইনে আবেদন করবেন। আবেদনপত্র দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যারেজ রেজিস্ট্রার খতিয়ে দেখে শুনানির জন্য দিন ধার্য করবেন। ওই দিনই মূল নথি ও ঠিকানা খতিয়ে দেখা হবে। দিতে হবে প্রয়োজনীয় টাকাও। সব ঠিক থাকলে রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট মিলবে অনলাইনেই। বিয়ের আবেদনের সঙ্গে পেশ করা সব নথিপত্র ডিজিটাইজড করাই লক্ষ্য আইন দফতরের। যাতে ভবিষ্যতে তথ্য দরকার হলে তা সহজেই মেল।

এই মুহূর্তে আবেদন করা, নির্দিষ্ট দিনে আবেদনকারীদের ডাকা, সই করা-সহ নানা কারণে একাধিক বার রেজিস্ট্রারের কাছে যেতে হয়। অনলাইন ব্যবস্থা চালু হলে মাত্র এক বারই যেতে হবে রেজিস্ট্রারের কাছে। মলয়বাবুর আশা, ‘‘এর ফলে আবেদন-সংখ্যা বাড়বে। বারবার রেজিস্ট্রারের কাছে ছোটার ঝক্কিও কমবে।’’ বর্তমানে রাজ্যে ফি বছর গড়ে সাড়ে আট থেকে ন’লক্ষ নিবন্ধীকরণের আবেদন জমা পড়ে। নতুন ব্যবস্থায় সেই সংখ্যা বাড়বে বলেই আশা দফতরের কর্তাদের। তবে ইতিমধ্যেই যাঁদের রেজিস্ট্রেশন করানো রয়েছে, তাঁদের আর নতুন করে অনলাইনে কিছু করাতে হবে না।