উপর তলা থেকে জরিমানা আদায়ের কর্মসূচি জোরদার করার নির্দেশের পরে রেল দেখেছে, ট্রেনে বিনা টিকিটের যাত্রীর সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। এতটাই যে, গত তিন বছরে শুধু জরিমানা থেকেই রেলের আয় হয়েছে প্রায় ১৩৭৭ কোটি টাকা।

চলতি আর্থিক বছরেও যাত্রীদের টিকিট না-কাটার প্রবণতা অব্যাহত। এতটাই যে, আয়ের অঙ্ক অতীতের হিসেব ছাপিয়ে যেতে পারে বলে রেলকর্তাদের একাংশের অনুমান।

বছর দুয়েক আগে সংসদের রেলওয়ে কনভেনশন কমিটির সদস্যেরা জরিমানা থেকে পাওয়া অর্থের হিসেব দেখে প্রকৃত টিকিটবিহীন যাত্রীর সংখ্যা নিয়ে রীতিমতো উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন। তার পরেই রেলের বিভিন্ন জ়োনকে চিঠি লিখে জরিমানা আদায়ের বিষয়ে তৎপর হতে নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশ পেয়ে রেলের তরফে চিঠি লিখে টিকিট পরীক্ষার উপরে জোর দিতে বলা হয় বিভিন্ন জ়োনকে।

২০১৬-১৭ আর্থিক বছরে টিকিট না-কাটার ঘটনায় জরিমানা আদায়ের অঙ্ক ছিল ৪০৫ কোটি টাকার কাছাকাছি। ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে সেই অঙ্ক বেড়ে দাঁড়ায় ৪৪১ কোটি। ২০১৮-১৯ আর্থিক বছরে অঙ্কটা ৫৩০ কোটি টাকায় গিয়ে ঠেকে। তথ্যের অধিকার আইনে মধ্যপ্রদেশের এক ব্যক্তি মামলা করায় সম্প্রতি জরিমানা আদায়ের ওই অঙ্ক প্রকাশ্যে এসেছে।

বিনা টিকিটের যাত্রীদের কাছ থেকে জরিমানা আদায়ে সব চেয়ে এগিয়ে আছে উত্তর রেল। তার পরে রয়েছে দক্ষিণ-মধ্য ও পশ্চিম রেল। পূর্ব-মধ্য রেল এবং উত্তর-মধ্য রেলও এই দৌড়ে রয়েছে। তবে তুলনায় বেশ কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে দক্ষিণ রেল।

বিনা টিকিটের যাত্রীদের থেকে জরিমানা আদায়ের ক্ষেত্রে পূর্ব রেল খুব পিছিয়ে নেই। রেল সূত্রের খবর, চলতি আর্থিক বছরে গত এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত মাত্র চার মাসের মধ্যে পূর্ব রেলের সব ডিভিশন মিলিয়ে টিকিট না-কাটা, উপযুক্ত টিকিট না-থাকা, মালপত্রের জন্য টিকিট না-থাকার মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে ন’লক্ষ ৯৩ হাজার যাত্রীর জরিমানা করে ২৪ কোটি ৪৬ লক্ষ টাকা আয় হয়েছে। এর মধ্যে পূর্ব রেলের মালদহ ডিভিশনে গত ২৭ অগস্ট বিশেষ অভিযান চালিয়ে জরিমানা করা হয়েছে ৭৮৮ জন যাত্রীর।

দক্ষিণ-পূর্ব রেলের ক্ষেত্রে ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষে বিনা টিকিটে বা উপযুক্ত টিকিট ছাড়াই যাতায়াতের অভিযোগে আট লক্ষ ৮৮ হাজারের বেশি যাত্রীর জরিমানা করা হয়। ওই খাতে আদায় হয়েছে ৪৫ কোটি ৩০ লক্ষ টাকা। গত আর্থিক বছরে পশ্চিম রেল জরিমানা থেকে প্রায় ১২০ কোটি টাকা আয় করে। মধ্য রেল গত আর্থিক বছরে শুধু এপ্রিল থেকে নভেম্বরের মধ্যে জরিমানা খাতে ১০০ কোটি টাকার বেশি আয় করেছিল।