জট কিছুতেই কাটছে না। শনিবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠকের পরেও, আন্দোলনকারী প্রাথমিক শিক্ষকেরা ঘোষণা করলেন, আলোচনা সদর্থক হয়নি। ফলে তাঁরা অনশন চালিয়ে যাবেন।

ন্যায্য বেতনের দাবিতে গত ৯ দিন ধরে সল্টলেকের বিকাশ ভবনের সামনে অবস্থানে বসেছেন প্রাথমিকের প্রায় চার হাজার শিক্ষক-শিক্ষিকা। অবস্থানে বসার পরের দিন থেকেই অনশন করছেন তাঁরা। অন্যান্য রাজ্যে প্রাথমিক শিক্ষকেরা যে হারে বেতন পান, সেই হারে বেতন দিতে হবে— এই দাবিতেই আন্দোলন চলছে। আন্দোলনরত ১৪ জনকে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে বদলিরও তাঁরা প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।

এ দিন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করেন আন্দোলনকারীদের মধ্যে কয়েক জন। কিন্তু সেই বৈঠকে কোনও সমাধানসূত্র না বেরনোয় তাঁরা অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এই বৈঠকের পরে শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, “ক্লাস না করে অনশন চালিয়ে যাওয়া ঠিক নয়। তাঁরা যা দাবি করছেন, তাতে ৪ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত ব্যয় হবে। কে দেবে এই টাকা? মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যথেষ্ট সহানুভূতি দেখিয়েছেন। অতিরিক্ত ব্যয়ভার সম্ভব নয়। কী ভাবে সমাধনসূত্র বের করা যায়, তা দেখা হবে।”

অনশনরত শিক্ষকদের থাকার বার্তা দিলীপ ঘোষের। —নিজস্ব চিত্র। 

আরও পড়ুন: ২১ জুলাইয়ের ভিড়় সামলাতে ৫ হাজার পুলিশ, ব্যবস্থা খতিয়ে দেখলেন মমতা​

আরও পড়ুন: পরকীয়ার জের, শিবপুরের ফ্ল্যাটে সুপারি কিলার ডেকে এনে স্ত্রীর মাথা কেটেছিল স্বামী, গ্রেফতার ৩​

এ দিন সকালে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ অনশনরত শিক্ষকদের সঙ্গে দেখা করে পাশে থাকার বার্তা দেন। বলেন, “দেশের সর্বত্র সপ্তম বেতন কমিশন চালু হয়ে গিয়েছে। আর এখানে পঞ্চম বেতন কমিশনে মাইনে দেওয়া হচ্ছে। সরকারের চেতনা হওয়া উচিত। এই বেতন বৈষম্য কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না।”

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।