খাতায়-কলমে যাঁরা এখনও কংগ্রেসের বিধায়ক, তাঁরাও অংশগ্রহণ করছেন তৃণমূলের ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে। তার জেরে ‘দ্বিচারিতা’র অভিযোগ তুলে তাদের ‘দিদিকে বলছি’র প্রচারে সরব হল কংগ্রেস। নদিয়ার কালীগঞ্জের বিধায়ক হাসানুজ্জামান শেখ তাঁর এলাকায় ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে জনসংযোগ সেরেছেন শনিবার।

প্রদেশ কংগ্রেসের তরফে নদিয়া জেলার পর্যবেক্ষক অমিতাভ চক্রবর্তী রবিবার প্রশ্ন তুলেছেন, কংগ্রেসের প্রতীকে নির্বাচিত হাসানুজ্জামান কী ভাবে তৃণমূলের বিধায়ক হলেন? দলত্যাগের অভিযোগে তাঁর বিধায়ক-পদ খারিজের আর্জি তিন বছর ধরে পড়ে রয়েছে। অমিতাভবাবুর মন্তব্য, ‘‘আপনার দলের বিধায়ক অন্য দলে যোগ দিলে যদি ‘অসাংবিধানিক’ হয়, তা হলে কংগ্রেস ভাঙিয়ে নেওয়া বিধায়কদের সম্পর্কে আপনার নীরবতা দ্বিচারিতা নয় কি?’’

তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় অবশ্য বলেছেন, ‘‘দলত্যাগের ফয়সালা হয়নি বলে ‘দিদিকে বলো’য় ওঁরা অংশগ্রহণ করতে পারবেন না, এমন তো নয়!’’