শুক্রবার বিকেল থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি থেকে রেহাই মিললেও এখনও জলের তলায় কলকাতার বিস্তীর্ণ এলাকা। বেহালা, খিদিরপুর, সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, লেক গার্ডেন্স, ঠাকুরপুকুর, শখের বাজার-সহ বেশ কিছু অঞ্চলে জলযন্ত্রণার ছবি ফুটে উঠছে। সব থেকে খারাপ অবস্থা বেহালার। সেখানে বিভিন্ন ওয়ার্ডে এখানও হাঁটুজল।

গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় ১৩০ মিলিমিটারের বেশি হয়েছে। তবে রবিবার সকাল থেকে বৃষ্টির দাপট অনেক কম। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, আগামী ১২ ঘণ্টায় কলকাতায় বৃষ্টি কিছুটা কমবে। তবে দক্ষিণবঙ্গের হাওড়া, নদিয়া, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় কিছুটা বেশি বৃষ্টি হবে। এর পাশাপাশি এ দিন পুরুলিয়া, বীরভূম, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রামে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। সোমবার থেকে পরিস্থিতির উন্নতি হবে, অনেকটাই কমে যাবে বৃষ্টি।
আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ সংলগ্ন এলাকায় গত শুক্রবার থেকে একটি ঘূর্ণাবর্ত অবস্থান করছে। সেই ঘূর্ণাবর্ত এবার নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। তার জেরেই এই বৃষ্টিপাত।দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেও বৃষ্টি হয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখার কারণে। তবে এই নিম্নচাপ অতটা শক্তিশালী নয়। তাই সোমবার থেকে আবহাওয়ার উন্নতি আশা করা যায়।


আরও পড়ুন: দারিদ্রকে হারিয়ে জয়ী আইএএস জিতিন
আরও পড়ুন: পার্শ্বশিক্ষকদের বিক্ষোভ, লাঠি চালাল পুলিশ, ছাড় পেলেন না মহিলারাও​
 


অন্য দিকে ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় এক টানা বৃষ্টির কারণে কলকাতার বেশ কিছু এলাকা বিদ্যুৎহীন হয়ে রয়েছে। অভিযোগ আসছে খিদিরপুর, লেকগার্ডেন্স কয়েকটি অঞ্চলের বাসিন্দাদের থেকে। বেহালা পশ্চিমের প্রধান নিকাশি খাল বেগোর খালের বর্তমান অবস্থা চূড়ান্ত খারাপ। ময়লা জমে রয়েছে দীর্ঘ দিন ধরে। তার ফলেই জল নামছে পার্শ্ববর্তী অঞ্চলগুলি থেকে। 

বেহালার বেশ কয়েকটি অঞ্চল এখন জলমগ্ন। নিজস্ব ছবি


টানা বৃষ্টি, রাস্তায় জমা জলের কারণে শনিবার কলকাতায় যান চলাচলে ব্যাপক সমস্যা হয়েছে। ছুটির দিনে গাড়ির চাপ কম হওয়ায় রবিবার নতুন করে ভোগান্তি হবে না বলেই মনে করছে পুলিশ।