রাজ্য জুড়ে শাসক দলের গোষ্ঠী বিবাদ নতুন ঘটনা নয়। এ বার সেই দলীয় কোন্দলের ছায়া পড়ল দক্ষিণ ২৪ পরগনাতেও। বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে জেলার নেতাদের নিয়ে শনিবার বেহালায় সাংগঠনিক বৈঠক ডাকেন দলের জেলা সভাপতি তথা কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। ওই বৈঠকে শোভনবাবু জেলার নেতাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘‘নিজেদের মধ্যে বিভেদ মিটিয়ে ফেলে এক সঙ্গে চলতে হবে।’’ এ দিন তিনি ক্যানিং-১ তৃণমূলের ব্লক সভাপতি তথা জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি শৈবাল লাহিড়ীকে তিনি বলেন, ‘‘পঞ্চায়েত ভোট থেকে নানার গণ্ডগোলের অভিযোগ পাচ্ছি। পঞ্চায়েত সমিতির সঙ্গে যেন পদ্মা-গঙ্গার মতো দূরত্ব। এ সব মিঠিয়ে ফেলতে হবে।’’

ক্যানিং-২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তথা ব্লক তৃণমূলের সভাপতি সওকাত মোল্লাকেও তাঁর ধমক—‘‘দলের কথা বাইরে চলে যাচ্ছে। তুমি বেশি নিরাপত্তা রক্ষী নিয়ে ঘোর কেন?’’ সতর্ক করেন, ভাঙড়-১ তৃণমূলের ব্লক সভাপতি তথা জেলা পরিষদের সদস্য কাইজার আহমেদকেও। দলীয় সূত্রে খবর, তাঁর বিরুদ্ধেও স্বজন পোষনের অভিযোগ করেছেন তিনি।

ভাঙড়-২ ব্লক তৃণমূলের সভাপতি ওহিদুল ইসলামকে মেয়র জানান, সংগঠনের থেকে পঞ্চায়েত সমিতিতে পড়ে থেকে কাজে জোর দিতে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। ডায়মন্ড হারবরার বিধায়ক দীপক হালদারকে তিনি সতর্ক করে জানান, মুখ্যমন্ত্রী তাঁর বিরুদ্ধে দু’বার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাঁর নির্দেশ, ‘‘কাজে মন গিতে হবে।’’ জেলা পরিষদের সভাধিপতি সামিমা শেখকেও ‘সবাইকে নিয়ে’ কাজ করার পরামর্শ দিয়েছেন।