স্কুলে শিক্ষক নিয়োগকে ত্বরান্বিত করতে নিয়োগ প্রক্রিয়ার সরলীকরণ  করছে রাজ্য সরকার। এ ক্ষেত্রে লিখিত পরীক্ষা সব থেকে বেশি গুরুত্ব পাবে। ইতিমধ্যেই এ বিষয়ে নয়া বিধি তৈরি করার কাজ শুরু হয়েছে। সংবাদমাধ্যমে শনিবার এমনই জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। 

রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রিতা চলছেই। শিক্ষামন্ত্রী একাধিক বার জানিয়েছেন, মামলা–মোকদ্দমার ফলে নিয়োগ প্রক্রিয়া ব্যাহত হচ্ছে। এ দিন তিনি জানান, নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত এবং স্বচ্ছতার সঙ্গে করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে যে নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে, তা এখনকার নিয়মেই চলবে। তবে পরবর্তী কালে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি নতুন বিধি অনুযায়ী প্রকাশ করা হবে। সেই অনুযায়ীই নিয়োগ হবে। এ বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ এবং স্কুল সার্ভিস কমিশনকে ইতিমধ্যেই স্কুল শিক্ষা দফতরের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে বিকাশ ভবন সূত্রের খবর। শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য, নিয়োগের পরীক্ষা হওয়ার তিন-চার বছর পরেও অনেক ক্ষেত্রে নিয়োগ হয় না। এটা চলতে পারে না। 

শিক্ষামন্ত্রী এ দিন বলেন, ‘‘নতুন নিয়মে লিখিত পরীক্ষা সব থেকে বেশি গুরুত্ব পাবে। লিখিত পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে নিয়োগ হবে। তার পরে ভেরিফিকেশন।’’ তাঁর ব্যাখ্যা, লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের পরে এখন কাউন্সেলিং হয়, ভেরিফিকেশন হয়। এতে বহু সময় চলে যায়। নিয়োগপত্র দেওয়ার পরে এ সব হোক।