বিধানচন্দ্র রায়ের মূর্তি ভাঙার ঘটনায় বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুললেন কংগ্রেস নেতা-কর্মীরা। রবিবার সকালে মানকর স্টেশন রোড লাগোয়া কংগ্রেস কার্যালয়ের সামনে রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর আবক্ষ মূর্তিটি ভাঙা অবস্থায় মেলে। এর পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন কংগ্রেসের নেতা-কর্মীরা। বিক্ষোভ-অবরোধও করেন তাঁরা। ঘটনার প্রতিবাদে আসানসোলেও পথে নামে কংগ্রেস। বিজেপি যদিও অভিযোগ মানতে নারাজ। 

কংগ্রেস সূত্রে জানা গিয়েছে, মানকর স্টেশন রোডের পাশে দলের কার্যালয়ের সামনে ২০১১ সালের ১ জুলাই বিধানচন্দ্র রায়ের একটি আবক্ষ মূর্তি বসানো হয়। শনিবার রাতে সিমেন্টের তৈরি সেই মূর্তিটি সেখান থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে রাস্তার উপরে ভেঙে ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ। রবিবার সকালে এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই এলাকার কংগ্রেস কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছন। তাঁরা দাবি করেন, অবিলম্বে দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার করতে হবে। 

এ দিন ঘটনাস্থলে আসেন কংগ্রেসের জেলা নেতা দেবেশ চক্রবর্তী। তিনি অভিযোগ করেন, শনিবার কলকাতায় প্রদেশ কংগ্রেসের দফতরে বিজেপির কর্মী-সমর্থকেরা হামলা চালিয়েছে। তার পরেই মানকরে মূর্তি ভাঙার ঘটনার পিছনেও বিজেপি-ই রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। তাঁর অভিযোগ, ‘‘বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। রাজ্য ও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মনীষিদের মূর্তি ভাঙচুর করছে বিজেপি। এ রাজ্যেও সেই সংস্কৃতি এনেছে ওরা। জায়গায়-জায়গায় মূর্তি ভাঙছে।’’

দোষীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানকর স্টেশন রোড অবরোধ করেন কংগ্রেস নেতা-কর্মীরা। দলের মানকরের নেতা জয়গোপান দে অভিযোগ করেন, এ ভাবে এক জন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর মূর্তি ভাঙা চূড়ান্ত লজ্জার বিষয়। অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার না করা হলে বড় আন্দোলনের ডাক দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন তাঁরা। প্রায় দেড় ঘণ্টা রাস্তায় বসে স্লোগান দিতে থাকেন কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকেরা। পুলিশ এসে তাঁদের আশ্বস্ত করার পরে অবরোধ ওঠে। এ দিন মূর্তি রাখার জায়গাটি কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখেন কংগ্রেস কর্মীরা।

মূর্তি ভাঙার নিন্দা করে গলসির তৃণমূল বিধায়ক অলোক মাঝি বলেন, ‘‘এর বিরুদ্ধে কংগ্রেসের আন্দোলনে আমাদের সমর্থন থাকবে।’’ তৃণমূলের গলসি ১ ব্লক সভাপতি জাকির হোসেনও বলেন, ‘‘অত্যন্ত নিন্দনীয় ঘটনা। প্রশাসন যথাযথ তদন্ত করে ব্যবস্থা নিক।’’

তবে এই ঘটনার সঙ্গে তাঁদের কেউ জড়িত নয় বলে দাবি করেছেন বিজেপির গলসি বিধানসভার পর্যবেক্ষক রমন শর্মা। তাঁর বক্তব্য, ‘‘এই ধরনের কাজ আমাদের দল সমর্থন করে না। প্রশাসন উপযুক্ত তদন্ত করলে আসল ঘটনা সামনে আসবে।’’ পুলিশ জানায়, কে বা কারা মূর্তি ভাঙল, তার খোঁজ চলছে।

মানকরে বিধানচন্দ্র রায়ের মূর্তি ভাঙা এবং কলকাতায় দলের দফতরে ‘হামলা’র প্রতিবাদে এ দিন বিকেলে আসানসোলে পুরনো জিটি রোডের হটন রোড সংযোগস্থলে প্রতীকি পথ অবরোধ করে কংগ্রেস। ছিলেন দলের জেলা কার্যকরী সভাপতি প্রসেনজিত পুইতন্ডি। দুর্গাপুরে গাঁধী রোডে বিক্ষোভ-মিছিল ও রাস্তা অবরোধ করেন কংগ্রেস কর্মীরা। ছিলেন জেলা সভাপতি তরুণ রায়, দলের নেতা স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়েরা।