হাওড়া আদালতে আইনজীবীদের উপরে পুলিশের লাঠি চালানোর ঘটনায় কলকাতা হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মামলা দায়ের করেছিল। সেই মামলার শুনানি সোমবার শেষ হয়েছে। আজ, মঙ্গলবার ডিভিশন বেঞ্চ রায় না-দিলে রাজ্য বার কাউন্সিল সিদ্ধান্ত নেবে, আইনজীবীদের কর্মবিরতির মেয়াদ আরও বাড়ানো হবে কি না।

বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার ও বিচারপতি অরিন্দম মুখোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ এ দিন জানিয়েছে, রায় পরে ঘোষণা করা হবে। ওই মামলার শুনানি প্রথমে হচ্ছিল হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে। প্রধান বিচারপতির ইচ্ছানুসারে পরে সেটি বিচারপতি সমাদ্দারের ডিভিশন বেঞ্চে যায়। ২৪ এপ্রিল হাওড়া পুরসভার সামনে গাড়ি রাখা নিয়ে পুরকর্মী ও আইনজীবীদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। তার জেরে পুরসভার সামনে রাস্তা অবরোধ করেন আইনজীবীরা। তাঁদের অভিযোগ, সেই অবরোধ তোলার নামে আদালতে ঢুকে যথেচ্ছ লাঠি চালায় পুলিশ। আইনজীবীদের লক্ষ্য করে কাঁদানে গ্যাসের শেলও ফাটায় তারা। সেই ঘটনার প্রতিবাদে ২৫ এপ্রিল থেকে রাজ্যের সব আদালতে কাজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বার কাউন্সিল।

আইনজীবীরা আর কত দিন কাজ বন্ধ রাখবেন, তা নিয়ে আলোচনার জন্য রাজ্য বার কাউন্সিল মঙ্গলবার বৈঠকে বসবে। আইনজীবীরা কবে আবার কাজে যোগ দেবেন, আজ কাউন্সিলের বৈঠকে সেই বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত না-হলে দুর্ভোগ বাড়বে বিচারপ্রার্থীদের। আইনজীবীরা কাজ বন্ধ রাখায় নোটারি বা প্রথম শ্রেণির বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ‘হলফনামা’ নেওয়ার কাজও বন্ধ রয়েছে। কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য দাতা বা গ্রহীতা হলফনামা পেশ করতে পারছেন না হাসপাতালে।

হাইকোর্টের কৌঁসুলিদের একাংশ জানান, আজ মামলার রায় ঘোষণা না-হলে কর্মবিরতির মেয়াদ ফের বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিতে পারে বার কাউন্সিল। হাইকোর্টে গরমের ছুটি শুরু হবে ২৭ মে। তার আগে সেখানে শেষ কাজের দিন ২৪ মে।