চার বছর ধরে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসা সত্ত্বেও কেন্দ্র গঙ্গাসাগরে যাতায়াতের জন্য লোহার সেতু গড়ে না-দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার উট্রাম ঘাটের কাছে সাগরযাত্রীদের শিবিরে এক অনুষ্ঠানে তিনি আশ্বাস দেন, পুণ্যার্থীদের সুবিধার্থে রাজ্য সরকারই এ বার লোহার সেতু বানিয়ে দেবে।

মুখ্যমন্ত্রী জানান, রাজ্য সরকার তাজপুরে বন্দর তৈরির পরিকল্পনা করেছে। সেই বন্দরের ৭৪ শতাংশ দাবি করছে কেন্দ্র। তাতেও রাজি ছিল রাজ্য সরকার। তবে তার বদলে গঙ্গাসাগরে একটি লোহার বা কংক্রিটের সেতু বানিয়ে দিতে বলা হয়েছিল কেন্দ্রকে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘চার বছর ধরে বানানোর প্রতিশ্রুতি দিলেও ওরা (কেন্দ্র) এখনও কিছু করেনি। তাই আমরা ঠিক করেছি, কারও কাছে ভিক্ষে চাইব না। ওই সেতুটি আমরাই বানিয়ে দেবো। তবে কয়েক বছর সময় লাগবে।’’ 

মুখ্যমন্ত্রী জানান, সেতু নির্মাণে দেড় হাজার কোটিরও বেশি টাকা খরচ হবে। এই মুহূর্তে একসঙ্গে এত টাকা খরচ করার মতো অবস্থায় নেই রাজ্য সরকার। তবে দু’তিন বছর সময় লাগলেও টাকা জোগাড় করে রাজ্যই সেতুটি গড়ে দেবে। ওই প্রকল্পের সবিস্তার রিপোর্ট তৈরির জন্য পূর্ত দফতর এবং মুখ্যসচিবের সঙ্গে কথা হয়েছে। তীর্থযাত্রীদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘ধর্ম যাঁর যাঁর নিজের। কিন্তু উৎসব সবার। গঙ্গাসাগর মেলায় ধর্মের নামে কেউ কোনও বিভেদ সৃষ্টি করলে বা আগুন জ্বালাতে চাইলে রুখে দাঁড়াবেন। বিভেদের কথায় কান দেবেন না।’’ স্বামী বিবেকানন্দের ১৫৬তম জন্মদিন উপলক্ষে এ দিনের ওই অনুষ্ঠানে তাঁর ছবিতে পুষ্পার্ঘ্য দেন মুখ্যমন্ত্রী।