নির্বাচক তথ্য যাচাই কর্মসূচি বা ইভিপি-র সূচনায় পিছিয়ে ছিল পশ্চিমবঙ্গ। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ইভিপি-তে গতি বেড়েছে বাংলায়। দ্বিতীয় স্থানে থাকা রাজস্থানের থেকে বঙ্গে ইভিপি-তে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যাগত ব্যবধান সাড়ে পাঁচ লক্ষেরও বেশি। বাংলায় সামনের সারিতে রয়েছে সীমান্তবর্তী জেলাগুলি। সেখানে এনআরসি বা নাগরিক পঞ্জি সংক্রান্ত আতঙ্কের আবহে ইভিপি-র কাজ দ্রুত গতিতে এগোচ্ছে বলে মনে করছেন প্রশাসনিক কর্তাদের একাংশ।

পোর্টালে প্রযুক্তিগত কিছু সমস্যা হচ্ছে। রাজ্যে ইভিপি-র কাজকর্ম যে আরও বেশি গতি পাচ্ছে না, এটা তার একটা কারণ। নির্বাচন কমিশনের এক কর্তা বলেন, ‘‘দেশের মধ্যে ইভিপি-তে পশ্চিমবঙ্গের এগিয়ে থাকার কৃতিত্ব ভোটারদেরই। তাঁরা চাইছেন, তাঁদের নথি যাচাই হোক।’’ মঙ্গলবার পর্যন্ত বঙ্গে তথ্য যাচাই করেছেন ৩৪.৭৭ লক্ষ ভোটার। প্রথম স্থানে বাংলাই। দ্বিতীয় রাজস্থান, সেখানে ২৯.০৭ লক্ষ ভোটার ইভিপি-তে যোগ দিয়েছেন।

বঙ্গে নদিয়া রয়েছে শীর্ষে। সেখানে তথ্য যাচাই করেছেন ১৪% (৫.৬৮ লক্ষ) ভোটার। মুর্শিদাবাদে ৯.৩১% (৪.৮০ লক্ষ), উত্তর ২৪ পরগনায় ৮.৩৮% (৬.৩৮ লক্ষ), উত্তর দিনাজপুরে ৮.১৮% (১.৬৭ লক্ষ), মালদহে ৭%, কোচবিহারে ৬%।

কলকাতায় ইভিপি-তে যোগ দিয়েছেন ০.৫% ভোটার। লাগোয়া হাওড়ায় ১% এবং হুগলিতে ১.২৩%।