প্রায় দু’দশকেরও বেশি সময় ইন্ডাস্ট্রিতে কাটিয়ে দিলেন অভিনেত্রী সঙ্গীতা ঘোষ। পজ়িটিভ চরিত্রেই তাঁকে বেশি দেখা গিয়েছে। তবে এ বার তিনি ‘দিব্য দৃষ্টি’ ধারাবাহিকে এক পিশাচিনীর ভূমিকায়। অনেক দর্শকই এই ধরনের ধারাবাহিক অপছন্দ করেন। তা হলে এ রকম চরিত্রে অভিনয় করতে সম্মত হলেন কেন? সঙ্গীতা বললেন, ‘‘কুসংস্কারে আমি বিশ্বাস করি না। তবে ভূত-পেত্নী-ডাইনি এ সবে ভীষণ ভয়। আর এই ধরনের শো আগেও হতো। ‘চন্দ্রকান্তা’, ‘আলিফ লায়লা’, ‘বিক্রম অওর বেতাল’-এর মতো ধারাবাহিক আমরা দেখেছি। এখনকার দর্শক এবং বাচ্চারা অনেক বেশি সজাগ। তাদের শেখার মাধ্যম আলাদা। টিভি দেখে কেউ শেখে না।’’ এত বছর ইন্ডাস্ট্রিতে কাটানো কতটা কঠিন ছিল? ‘‘সহজ ছিল না। নিরাপত্তার অভাব ছিল। আর তখন আমরা সত্যিই বোকা ছিলাম। মনে আছে, অরুণা ইরানির সঙ্গে যখন কাজ করতাম, উনি আমাকে শেখাতেন, ইন্টারভিউ দিতে বসার আগে মেকআপ করতে হয়। সে সময়ে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ের চাপ থাকলে নিতে পারতাম না। আমরা কাজে বেশি মন দিতাম।’’ বাঙালি হলেও সঙ্গীতাকে বাংলা ছবিতে দেখা যায়নি। বললেন, ‘‘সুযোগ পেলেই করব। মা যখন ‘এক আকাশের নীচে’ দেখতেন, আমিও মায়ের সঙ্গে দেখতাম।’’ অভিনেত্রীর অবসর কাটে রান্না করে এবং বেড়িয়ে। বললেন, ‘‘আমার স্বামী রাজস্থানের। পোলো প্লেয়ার। ঘুরতে  ভালবাসেন আর খেতেও। সময় পেলেই রান্না করি।’’