পাত্রের চেয়ে পাত্রীর বয়স বেশি। এমন ঘটনা নতুন না হলেও, এখনও লোকের চোখে একটু ঠেকে বইকি! অনেক সেলেব্রিটিই বয়সের ব্যবধানে বিয়ে করেছেন। কিন্তু প্রশ্নের সম্মুখীন তাঁদেরও হতে হয়। প্রিয়ঙ্কা চোপড়া আর নিক জোনাস যখন বিয়ে করেছিলেন, তখনই অনেক কথা হয়েছিল। প্রিয়ঙ্কার বয়স ৩৬ বছর আর নিক ২৬। দশ বছরের ব্যবধান প্রিয়ঙ্কা-নিকের প্রেমে বাধা না হলেও নিন্দুকেরা সমালোচনা করতে ছাড়েনি। প্রিয়ঙ্কা নিজেও জানেন সে কথা। ‘‘আমাদের নিয়ে অনেক খারাপ কথা হয়। অথচ এই বয়সের ব্যবধান যদি উল্টো হতো? ছেলেটি বড় আর মেয়েটি ছোট, তা হলে এত প্রশ্ন উঠত না,’’ একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন প্রিয়ঙ্কা। তাঁদের বিয়ের সময়েই মিম, জোকসে ছেয়ে গিয়েছিল ইন্টারনেট। কিন্তু সব কিছুকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দিব্যি ঘরকন্না করছেন প্রিয়ঙ্কা-নিক। 

তাঁদের মতোই আর এক কাপলের বয়সের ব্যবধান নিয়ে চর্চা তু্ঙ্গে। অর্জুন কপূর (৩৩) এবং মালাইকা অরোরা (৪৫)। সমালোচকেরা যাই বলুন, অর্জুন বা মালাইকা তাঁদের বয়সের ১২ বছরের ব্যবধান নিয়ে ভাবিত নন। খুব শীঘ্রই তাঁরা বিয়ে করবেন বলে শোনা যাচ্ছে। দু’বছর হতে চলল আরবাজ় খানের সঙ্গে মালাইকার বিচ্ছেদ হয়েছে। মালাইকা ফের বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হবেন কি না, এমন প্রশ্নও ঘোরাফেরা করছে। বাবা বনি কপূর এবং মা মোনা কপূরের তিক্ত দাম্পত্য অর্জুনের উপরেও প্রভাব ফেলেছিল। অর্জুন সম্প্রতি এ বিষয়ে মন্তব্য করেছেন, ‘‘আমি ঘর ভাঙতে দেখেছি, তা সত্ত্বেও বিয়ের উপরে আমার বিশ্বাস রয়েছে। চারপাশে অনেক সুখী দম্পতি দেখতেও পাই।’’ অভিনেতা সাফ জানিয়েছেন, কাছের মানুষ ছাড়া বাকি কারও কথারই তিনি পরোয়া করেন না। অতএব, তৃতীয় পক্ষ যতই সমালোচনা, বিতর্ক চালিয়ে যাক, সম্পর্কে সুখী থাকাটাই তাঁদের কাছে আসল।