প্রসেনজিৎ, জিৎ ও সোহম... এক ছবিতে তিন নায়ক! ছবির নাম ‘বাঘ বন্দি খেলা’। ছবির পরিচালকও তিন জন— রাজা চন্দ, সুজিত মণ্ডল এবং হরনাথ চক্রবর্তী। প্রযোজক সুরিন্দর ফিল্মস। ছবি দেখার জন্য টিকিট কেটে প্রেক্ষাগৃহে যাওয়ার দরকারও নেই দর্শকের। বাড়িতে বসেই তিন নায়কের কীর্তিকলাপ জনপ্রিয় বাংলা চ্যানেলে দেখতে পাবেন। এত ক্ষণে নিশ্চয় অনেকটাই কৌতূহল পুঞ্জীভূত হয়েছে। ব্যাপারটা তা হলে খুলেই বলা যাক।

 ‘বাঘ’, ‘বন্দি’ ও ‘খেলা’— এই তিনটে নিয়ে গাঁথা হয়েছে একটা ছবি। প্রথম ছবি রাজা চন্দ পরিচালিত ‘বাঘ’। এখানে অভিনয় করছেন জিৎ, সায়ন্তিকা। ছবি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাইলে রাজা বললেন, ‘‘ছবি পরিচালনা করছি এবং জিতের সঙ্গে কথা হয়ে গিয়েছে। কিন্তু এখনও চিত্রনাট্য বা অন্যান্য কলাকুশলীর সঙ্গে কোনও কথা হয়নি।’’ শোনা যাচ্ছে, ‘বাঘ’-এর গল্প শেষ হচ্ছে এক অনুষ্ঠান বাড়িতে। সেখান থেকে শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় ছবি ‘বন্দি’র গল্প। পরিচালনা সুজিত মণ্ডলের। ‘‘তিনটে ছবি নিয়ে একটা ছবি হলেও প্রত্যেকটার গল্প ও তারকা আলাদা। এই ধরনের কাজ আমি আগে করিনি। নিঃসন্দেহে নতুন কাজ,’’ বললেন ‘বন্দি’র নায়ক সোহম। তাঁর বিপরীতে আছেন শ্রাবন্তী। সোহম ও শ্রাবন্তী বিয়ে বাড়িতে ছবি তুলতে গিয়ে তুলে ফেলে এমন কিছু ছবি যা তাদের বিপদে ফেলে। পরিস্থিতি থেকে পালাতে তারা কলকাতা থেকে চলে যায় বারাণসীতে।

 সোহম

‘বন্দি’-তে জবরদস্ত এক ভিলেনের চরিত্রে অভিনয় করছেন ভরত কল। ‘‘আমি এক জন দুর্নীতিগ্রস্ত পুলিশের চরিত্রে অভিনয় করছি। কিন্তু ছবির শেষে...না, বলব না। তবে শেষমেশ একটা চমক থাকবে,’’ বললেন ‘বন্দি’র পুলিশ অফিসার বিশ্বনাথ বসু। কলকাতা ও বারাণসীতে শুটিং হয়েছে এই ছবির। ‘বন্দি’ গল্পটি শেষ হচ্ছে কোর্ট রুমে। হরনাথ চক্রবর্তীর ‘খেলা’র প্রথম দৃশ্য শুরু হচ্ছে সেই কোর্ট রুম থেকে। ‘‘এই ছবিতে এক জন আইনজীবীর চরিত্রে দেখা যাবে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে। আছেন অঞ্জনা বসু, শান্তিলাল মুখোপাধ্যায়, রাজেশ শর্মা, অয়ন ভট্টাচার্য, ঋত্বিকা সেন, রাজদীপ প্রমুখ,’’ বললেন পরিচালক। আরও জানতে চাইলে মুখে কুলুপ আঁটলেন তিনি।

তিনটি গল্পকে একসঙ্গে নিয়ে ছবি হয়েছে বাংলা সিনেমায়। কিন্তু ‘বাঘ বন্দি খেলা’র মতো ছবি বাঙালি দর্শক আগে দেখেছেন কি না, মনে করা সত্যি কঠিন। কিন্তু এমন ছবি ছোট পর্দায় কেন? শোনা যাচ্ছে, ওই চ্যানেল নতুন ধরনের ছবি, নতুন শো নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে চায়।