মরণোত্তর চক্ষু দান করলেন ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়। হঠাৎ চক্ষুদানের ব্যাপারে তিনি ভাবলেন কেন?

‘‘হঠাৎ ঠিক নয়। অনেক ছোট থেকে আমার ইচ্ছে চক্ষুদান করার। কেউ যদি দৃষ্টি ফিরে পান, তার চেয়ে ভাল কিছু হতে পারে? কলেজে পড়ার সময়ে আমার এক বন্ধুর চোখের সমস্যা ছিল। ও ঠিক সময়ে চিকিৎসা করায়নি। এখন ও বাঁ চোখে আর দেখতে পায় না। সচেতনতা বাড়ানোর জন্য আমার এই প্রচেষ্টা। আমাকে দেখে যদি আমার পরিবারের লোকজন, সহকর্মীরা বা আমার ভক্তরা এগিয়ে আসেন, তা হলে এই প্রচেষ্টা সার্থক হবে,’’ বললেন অভিনেতা। ভাস্করকে এই ব্যাপারে সাহায্য করেছেন চক্ষুবিশারদ ডা. দেবাশিস চক্রবর্তী।

‘‘ডায়াবেটিক হলে চক্ষুদান করা যায় না। কিন্তু যাঁরা পারবেন, তাঁরা এগিয়ে আসুন। শুধু একটা ফর্ম ভর্তি করতে হবে। পরিবারের সদস্যদের জানিয়ে রাখতে হবে। মৃত্যুর ৩০ মিনিটের মধ্যে খবর দিতে হবে,’’ বললেন অভিনেতা।