গত বছর সাতপাকে বাঁধা পড়েছিলেন মিলিন্দ সোমন। ২৭ বছরের পাত্রী অঙ্কিতা কোনওয়ারকে বিয়ে করে ট্রোলদের রোষের মুখে পড়েছিলেন মডেল-অভিনেতা। কিন্তু কখনও সমালোচনার তোয়াক্কা করেন না তিনি। করবেনই বা কেন? তিনি তো আঠেরো থেকে আটান্ন বছর বয়সি মহিলাদের হার্টথ্রব। যৌবনেও তিনি যতটা আকর্ষক, পঞ্চাশ পেরিয়েও ততটাই। তাঁর আবেদন বেড়েছে বই কমেনি। এত মহিলা ভক্ত দেখে স্ত্রী অঙ্কিতা কী বলেন? ‘‘অঙ্কিতা সব জানে। এখন ওর কাছে সব সহজ হয়ে গিয়েছে। আগে ওরও কিছু জিনিস অবাক লাগত,’’ টোল পড়া গালে মুচকি হেসে বললেন মিলিন্দ।

অভিনেতা হিসেবে সফল না হলেও মিলিন্দ কাজ করা ছাড়েননি। নতুন ওয়েব সিরিজ় ‘ফোর মোর শটস’-এ তাঁকে দেখা যাবে। কেমন চরিত্র পছন্দ করেন? ‘‘অভিনয় করতে ভালবাসি। তা বলে একঘেয়ে কাজ নয়। এক বার পুলিশের চরিত্র করলে ৫০ বার একই ধরনের স্ক্রিপ্ট আসে। ইন্ডাস্ট্রিতে অভিনেতারা খুব সহজেই টাইপকাস্ট হয়ে যান। বৈচিত্রপূর্ণ কাজের প্রস্তাব এলেই করব। সে টিভি হোক বা বড় পর্দা বা ওয়েব। যে কোনও প্ল্যাটফর্মে কাজ করতে রাজি,’’ বললেন মিলিন্দ। 

অভিনয়ের পাশাপাশি মহিলাদের স্তন ক্যানসার নিয়ে তাঁর সচেতনতামূলক কাজ অবশ্যই উল্লেখযোগ্য। বিভিন্ন শহরে ম্যারাথনের আয়োজন করেন স্ত্রী অঙ্কিতার সঙ্গে। জিতেছেন ‘আয়রনম্যান’-এর মতো সম্মানীয় খেতাবও। ‘‘আয়রনম্যানের পরে আলট্রাম্যানও হয়েছিলাম। কিন্তু সেটা নিয়ে অত প্রচার ছিল না বলে অনেকেই হয়তো জানেন না। এখন আমি ডাবল আয়রনম্যান হওয়ার কথা ভাবছি। তবে সেটা খুব কঠিন।’’

রানার শিবনাথ সিংহের কথা বোধহয় অনেকেই জানেন না। ১৯৭৮ সালে ৪২ কিলোমিটার খালি পায়ে দৌড়ে রেকর্ড তৈরি করেছিলেন তিনি। এখনও পর্যন্ত সেই রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারেননি। মিলিন্দের স্বপ্ন, তাঁর বায়োপিকে অভিনয় করার। এ ছাড়া টিভিতে সায়েন্স ফিকশন বা লাভ স্টোরি করার প্রস্তাব পেলেও রাজি তিনি। আসলে প্রেমের সুপারহিট ‘রুলস’ তো তিনিই লিখেছিলেন অষ্টাদশীদের জন্য।