তিনি যে সময়ে টেলিভিশনে জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন, সেটা ছিল হিন্দি ধারাবাহিকের স্বর্ণযুগ। ‘কুমকুম’ ধারাবাহিকে সুমিতের চরিত্রে এখনও দর্শকের মনে রয়েছেন হুসেন কুওয়াজেরওয়ালা। মাঝে টেলিভিশন থেকে বিরতি নিয়েছিলেন। আবার তিনি ছোট পর্দায়, ‘কিচেন চ্যাম্পিয়ন’ শোয়ে প্রতিযোগী হিসেবে। এই শোয়ে সঙ্গে রয়েছেন স্ত্রী টিনাও। 

আদৌ কি রান্না জানেন? ‘‘বেসিকটা জানি। অনেক পদ যে পারি, এমনটা নয়। তবে টিনা সঙ্গে আছে বলেই সাহস পেয়েছি। ভুল করলে ও সামলে নেবে,’’ জবাব হুসেনের। এক সময়ে ‘নাচ বালিয়ে’ শোয়ে টিনা-হুসেনের জুটি হিট ছিল। দু’জনের মধ্যে কে বেশি রোম্যান্টিক? ‘‘যদি বলি আমি, তবে সেটা মিথ্যে। আমি খুব একটা পিছিয়েও নই,’’ মজার ছোঁয়া তাঁর কণ্ঠে।

ডিজিটালের দাপটে টেলিভিশন কি এখন কোণঠাসা? মানতে চাইলেন না হুসেন, ‘‘আমরা যখন কাজ করেছি, তখনও টেলিভিশনের খুব ভাল সময় ছিল। এখনও তাই। তফাত, এখন চ্যানেলের সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে। বিকল্প মাধ্যম এসেছে। তাই একটা নির্দিষ্ট ধারাবাহিকের প্রতি দর্শক আর আগের মতো লয়্যাল থাকেন না।’’

টেলিভিশন ছেড়ে বড় পর্দায়ও চেষ্টা করেছিলেন হুসেন। সাফল্য পাননি। হালফিল ছোট পর্দার তারকারা যে ভাবে বড় পর্দায় সাফল্য পেয়েছেন, তাতে কি মনে হয়, সুযোগ পাওয়া এখন সহজ? বললেন, ‘‘সেটা ঠিক নয়। বড় পর্দায় সুযোগ পাওয়া এখনও আগের মতোই কঠিন। একটা ছবিতে সাফল্য পেলেই লড়াই শেষ হয়ে যায় না। প্রত্যেক শুক্রবার ভাগ্য বদলায়। এই প্রসেসটা চলতেই থাকে।’’

সঞ্চালনা, থিয়েটারও করেছেন হুসেন। বললেন, ‘‘নানা মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের কাজ করার যে স্বাধীনতা পেয়েছি, সেটা খানিক নষ্ট করেছে আমাকে। কাজ বেছে নিতে এখন একটু সময় লাগে। তবে টেলিভিশনে অবশ্যই আরও শো করতে চাই।’’