কমেডি তাঁর জোরের জায়গা। তাই সোশ্যাল কমেডি, কমেডি থ্রিলার এ রকম নানা মলাটে ছবি করছেন অভিমন্যু মুখোপাধ্যায়। বললেন, ‘‘সোহম-শ্রাবন্তী আর ওম-দর্শনাকে নিয়ে ‘হুল্লোড়’ বলে একটা ছবি করলাম। ঋত্বিক-শ্রাবন্তীর সঙ্গে ‘টেকো’ করলাম, সেটাও কমেডি। তবে একটু অন্য স্বাদের।’’

সামনে মুক্তি পাচ্ছে অভিমন্যুর ‘গুগলি’। প্রেমেরই গল্প। দুই চরিত্রই তোতলা! পরিচালকের কথায়, ‘‘যাঁরা স্ট্যামার করেন, তাঁদের নিয়ে ঠাট্টা হয়। তার বিরুদ্ধে সূক্ষ্ম একটা বার্তা রয়েছে ছবিতে। কমেডির মোড়কেই।’’ জানালেন, ‘পিয়া রে’র শুটিংয়ের সময়ে একটি সংলাপে শ্রাবন্তী আচমকা ‘স্ট্যামার’ করেন। সেখান থেকেই ‘গুগলি’র আইডিয়া।

সুরিন্দর ফিল্মসের সঙ্গে পরপর ছবি করছেন অভিমন্যু। জানালেন, তিনি সংস্থার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ নন। খানিকটা কাকতালীয় ভাবেই সুরিন্দরের সঙ্গে পরপর কাজ করছেন। ‘‘ওদের সঙ্গে কাজ করতে ভাল লাগে। অনেকটা স্বাধীনতা পাই,’’ হাসিমুখে বললেন তিনি। তবে এসকে-র সঙ্গে ‘হুল্লোড়’ করলেন এবং ভেঙ্কটেশ ডাকলে যে তাদের সঙ্গেও ছবি করবেন, জানালেন তিনি।

সিনেমা বানানোর আগে থেকেই চিত্রনাট্য লিখছেন বলে, গল্প ভাবতে তাঁর বেশি সময় লাগে না। তাই গল্প লেখা থেকে ফ্লোরে যাওয়া— গোটা প্রসেসটা অভিমন্যুর কাছে অন্তত সময়সাপেক্ষ নয়। নতুন একটি ছবি করতে চলেছেন পরিচালক। তার স্ক্রিপ্টিং চলছে এখন। এই ছবিতে নায়কের চরিত্রে গৌরব চক্রবর্তীকে কাস্ট করবেন বলে ভেবেছেন অভিমন্যু। বিপরীতে শ্রাবন্তী। এই ছবিও ইমোশনাল রম-কম।

পরপর শ্রাবন্তীর সঙ্গে ছবি করছেন... এর পর লোকে পরিচালকের সঙ্গে অভিনেত্রীর নাম জড়ালে? হেসে ফেললেন অভিমন্যু, ‘‘মানালি (দে) আছে বলে এটা থেকে বেঁচে গিয়েছি!’’ শ্রাবন্তী প্রসঙ্গে বললেন, ‘‘এখনকার অন্যতম ভাল অভিনেত্রী। কমার্শিয়াল ছবিতেই লোকে ওকে বেশি দেখে। কিন্তু প্যারালাল ছবিতে পড়লে ও কী করতে পারে ‘গয়নার বাক্স’ বা ‘বুনোহাঁস’-এ দেখিয়ে দিয়েছে। উপরি হল, ও সেট মাতিয়ে রাখে! আর সে ভাবে দেখলে ইন্ডাস্ট্রিতে অভিনেতার সংখ্যা বড় কম!’’

তবে শুধু শ্রাবন্তী নয়। কোয়েল মল্লিকের সঙ্গে এর মধ্যে ‘ফ্লাইওভার’-এর শুটিংও সেরে ফেলেছেন পরিচালক। এত ছবির মাঝে মানালির সঙ্গে বিয়েটা কবে? ছোট্ট উত্তর, ‘‘প্ল্যানিং নেই। এ বছরের শেষে বা সামনের বছরের শুরুতে।’’