বক্স অফিস আর আইডিয়া দুটোই বড় বালাই। তার জন্য একটা জিনিস নিয়ে টানাটানি করতে হলে তাই সই! ব্যোমকেশ বক্সীর চরিত্রে দর্শক সম্ভবত নতুন অভিনেতাকে দেখতে চলেছেন। তিনি পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। 

তা বলে ভাববেন না, যিশু সেনগুপ্ত এবং আবীর চট্টোপাধ্যায় আর ব্যোমকেশের চরিত্রে অভিনয় করবেন না। বাংলা সিনেমার বাজারে এখন তিন জন ব্যোমকেশ! পরিচালক, প্রযোজকের সংখ্যাও তিন। আসলে শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যোমকেশের স্বত্ব রয়েছে একাধিক প্রযোজকের কাছে। প্রত্যেকেই নিজের মতো ছবি নিয়ে আসছেন। তার উপরে এর আগের সব ক’টি ছবিই বাণিজ্যিক ভাবে মোটামুটি সফল। 

শোনা যাচ্ছে, ব্যোমকেশ বক্সীর ‘মগ্ন মৈনাক’ নিয়ে পরমব্রতর ছবি। এখানে নাকি ব্যোমকেশকে আধুনিক ভাবে দেখানো হবে। এই ছবির পরিচালক হিসেবে পরমব্রতর নামই উঠে আসছে। তবে আগামী মাসেই পরমব্রতর অন্য ছবি পরিচালনা করার কথা। তাঁর ব্যস্ততার কারণে প্রযোজনা সংস্থা সায়ন্তন ঘোষালকে পরিচালনার দায়িত্ব দিতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে। 

আবীরকে নিয়ে অরিন্দম শীল তাঁর পরবর্তী ব্যোমকেশ কবে পরিচালনা করবেন, এখনও চূড়ান্ত নয়। জানিয়েছেন, চিত্রনাট্য লেখার কাজ চলছে। তবে কোন গল্প সেটা ভাঙতে চাননি। অন্য দিকে প্রযোজক কৌস্তুভ রায় ব্যোমকেশ বক্সী পরিচালনার দায়িত্ব অঞ্জন দত্তর বদলে দিয়েছেন ইন্দ্রনীল ঘোষকে। যেখানে সত্যান্বেষীর চরিত্রে যিশু। তাঁরা শরদিন্দুর অসমাপ্ত ‘বিশুপাল বধ’ নিয়ে ছবি করছেন। তিন ব্যোমকেশের এই সহাবস্থান ‘শান্তিপূর্ণ’ কি না, তা অবশ্য ভবিষ্যৎই বলবে।