জয়া আহসান

এ বার পু়জোর প্রথম কয়েকটা দিন কলকাতাতেই থাকছি। তার পর বাংলাদেশ যাব। কলকাতায় পুজোর উন্মাদনা একেবারেই আলাদা। যদিও যানজটের কারণে ঠাকুর দেখা প্রায় সম্ভব হয় না বললেই চলে। দেখছি তো, পুজো শুরুর আগেই মানুষের ঢল নেমে যায় রাস্তায়। ষষ্ঠীর দিন বোলপুর থেকে ফিরেছি। ওখানে পরিবারের সঙ্গে ছুটি কাটাচ্ছিলাম। একদম শান্ত পরিবেশ। তার পর এখানে ফিরে শহরের জৌলুসটা টের পেলাম। তবে এর আগেও কলকাতার পুজো উপভোগ করেছি।

রাহুল

রাহুল বন্দ্যোপাধ্যায়

পুজোর সময় আমি কলকাতার বাইরে। এমনিতে তো সারা বছরই কাজের চাপ, তাই পুজোর সময় ছুটিটা জমিয়ে এনজয় করি। বহু আকাঙ্ক্ষিত এই ছুটি যদি সেই বাড়িতে বসে আড্ডা মেরেই কাটে, তা হলে তো ঘুরে আসাই ভাল। গত বছর গিয়েছিলাম কেরল। আর এ বার বন্ধুদের সঙ্গে যাচ্ছি সুন্দরবন। শুধু আড্ডা আর পেটপুজো। 


সুমন

আরও পড়ুন:সব আপেল কি মাটিতেই পড়ে?

সুমন মুখোপাধ্যায়

দিল্লি-মুম্বই অনেক হয়েছে, পুজোর কয়েকটা দিন কলকাতাতেই থাকব। পুজোর সময় কলকাতার আমেজটাই আলাদা। আর এখানেই তো সব বন্ধুবান্ধব রয়েছে। পুজো শেষ হয়ে গেলে কিছু দিন কাটিয়ে আবার মুম্বই ফিরে যাব। ওখানে নতুন কিছু কাজের কথা চলছে।



অর্পিতা

অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়

পুজোর সময় ছেলের (মিশুক) ছুটি থাকে না। তাই কলকাতা যতই মিস করি না কেন, ওর কথা ভেবে এই সময়টা শহরে আসি না। মিশুক ছাড়া কলকাতা সত্যিই ভাল লাগে না। তবে এ বার মুম্বই যাব। কিছু কাজও আছে, আবার আমার শ্বশুর (বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়) ওখানে দুর্গাপুজো করেন। প্রায় তিন বছর আগে গিয়েছিলাম পুজোয়। তাও মিশুককে জিজ্ঞেস করলাম, আমি গেলে ওর মন খারাপ লাগবে কি না। মিশুক তো এক কথায় ‘হ্যাঁ’ করে দিল। 

ঋদ্ধি

ঋদ্ধি সেন

আজ পর্যন্ত কলকাতায় আছি। যা ঠাকুর দেখার, দেখে নেব। অষ্টমীর সকালে বাবা-মা আর আমি ঘুরতে যাচ্ছি রাজস্থান। তিন জনের একসঙ্গে ছুটি তো আর পাওয়া যায় না। তাই এই সময়টাই ঠিক করেছি। আর ‘পার্চড’-এর শ্যুটিংয়ের সময় এত ঘুরেছি রাজস্থান! তাই আমিই সাজেস্ট করেছিলাম জায়গাটা। গাইডের কাজটা আমিই করে দেব।

ছবি ফেসবুক থেকে