ধুমধাম করে বিয়েপর্ব মিটে গিয়েছে। এ বার কি তা হলে মধুচন্দ্রিমা না কি কাজে ফেরা? রবিবার ছিল রাজ-শুভশ্রীর বিয়ের রিসেপশন। তার এক দিনের মধ্যেই কাজে ফিরেছেন রাজ চক্রবর্তী। চলছে নতুন ছবির পরিকল্পনা। কারণ রাজের ‘কাটমুণ্ডু টু কম্বোডিয়া’ আপাতত হচ্ছে না। পর পর অভিনেতারা ব্যাক আউট করছেন। সুতরাং ছবির কাজ এই মুহূর্তে শিকেয়!

ছবিতে কাজ করার কথা ছিল যিশু সেনগুপ্ত, সোহম চক্রবর্তী এবং রুদ্রনীল ঘোষের। নায়িকা শুভশ্রী এবং তনুশ্রী। প্রথমে পিছু হটলেন যিশু। এই মুহূর্তে তাঁর হাতে গুচ্ছ ছবি। তার উপরে যিশুর নাকি গল্প পছন্দ হয়নি। যিশুর আগে এই চরিত্রটা করার কথা ছিল আবির চট্টোপাধ্যায়ের। যিনি প্রথম ছবিতে ছিলেন। চরিত্র এবং গল্প পছন্দ না হওয়ার জন্যই আবির ‘কাটমুণ্ডু’র সিকুয়েলে কাজ করতে চাননি। এ বার যিশু নিজেকে সরিয়ে নিলেন। এ পর্যন্ত ঠিকই ছিল। নির্মাতারা অন্য ভাবে গল্পটা ভাবছিলেন। কিন্তু সোহমও পিছু হটে যাওয়ায় রাজের প্রজেক্ট আপাতত স্থগিত।

কিন্তু সোহম কেন করছেন না? শোনা যাচ্ছে, তাঁর চরিত্র পছন্দ হয়নি। গল্পে রুদ্রনীলের চরিত্রটাই সবচেয়ে জোরালো। আর সেটাই না-পসন্দ বাকি অভিনেতাদের। তবে মুখে স্পষ্ট করে কেউ সে কথা বলছেন না। রুদ্রনীলের কাছে এ ব্যাপারে প্রশ্ন রাখা হলে তাঁর বক্তব্য, ‘‘বাকিরা কেন ছাড়ল, তা বলতে পারব না। এখন চিত্রনাট্যই আসল। কার চরিত্র ছোট, কার বড়— সেগুলো প্রাধান্য পায় না। ছবিটা কেমন হচ্ছে সেটাই প্রধান বিবেচ্য। অন্তত আমার মতে তো অবশ্যই। বাকিদের কথা জানি না!’’

গল্প এখানেই শেষ নয়। কম্বোডিয়ায় শুটিং করতে গেলে বাজেট বেড়ে যাচ্ছে। তাই প্রযোজনা সংস্থা অন্য জায়গার কথা ভাবছে। সুতরাং এর পর যদি রাজ নতুন চিত্রনাট্য তৈরি করেন, সেখানে কম্বোডিয়া যাত্রা হবে কি না সন্দেহ আছে! 

পরিচালকের ‘টং লিং’ হচ্ছে না। ‘সিরাজউদ্দৌলা’ কবে হবে ঠিক নেই। এর মধ্যে বাতিল হল ‘কাটমুণ্ডু টু কম্বোডিয়া’ও।  তবে রাজ চক্রবর্তী বসে থাকার বান্দা নন। তিনি নতুন প্রজেক্টে হাত দিয়েছেন। চলছে চিত্রনাট্য লেখার কাজ। কাস্টিংও মোটামুটি তৈরি বলেই শোনা যাচ্ছে।