মুম্বই ইন্ডাস্ট্রিতে সম্পর্ক-বন্ধুত্ব যা কিছুই হয়, বেশির ভাগই লাভের অঙ্কের হিসেব মেনে। তার আরও একটি উদাহরণ রইল হাতেনাতে। মাসখানেক আগে রাজকুমার হিরানির নাম জড়িয়েছিল মিটু আন্দোলনে। রাজকুমার নাকি ‘সঞ্জু’র শুটিং চলাকালীন টিমের এক মহিলা সদস্যকে যৌন হেনস্থা করেছিলেন, অভিযোগ ওঠে এমনই। অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার আগেই বিধু বিনোদ চোপড়া সে বার রাজকুমারের প্রবল বিরোধিতা করেছিলেন। আর রবিবার, আকাশ অম্বানী-শ্লোক মেহতার বিয়ের অনুষ্ঠানেই দু’জনকে দেখা গেল খোশ গল্প করতে। যেন কয়েক মাস আগের ঘটনা ছিল অলীক কল্পনা! 

 সে বার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার আগেই ‘এক লড়কি কো দেখা তো অ্যায়সা লগা’ ছবিটি থেকে রাজকুমারের নাম সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। বিধুর স্ত্রী-ও তখন বলেছিলেন, প্রযোজনা সংস্থা থেকে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেবেন তাঁরা। এখন তলিয়ে ভাবার বিষয় হল, কোনও সাক্ষ্য-প্রমাণ না পেয়ে বিধু এমন করলেন কেন তাঁর এত বছরের পুরনো বন্ধুর সঙ্গে? হতে পারে, মিটু আন্দোলনের তখনকার প্রেক্ষিতে বিধুরা নিজেদের তরফে কোনও ফাঁক রাখতে চাননি। আবার এ-ও হতে পারে, ‘সঞ্জু’র লাভের অংশ নিয়ে বিধু এবং রাজুর মধ্যে যে মতান্তর হয়, এই অভিযোগ তারই প্রতিফলন। 

বন্ধ দরজার ভিতরে কী রফা হয়েছে দু‍’জনের, সেটা অবশ্য সংবাদমাধ্যম জানতে পারেনি। তবে আকাশ-শ্লোকের বিয়েতে বিধুকে জিজ্ঞেস করা হয়, রাজুর বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে। তাতে বিধু অবশ্য নীরবই থেকেছেন। এবং এটুকুই বলেছেন, এ ব্যাপারে কোনও কথা তিনি ওই জায়গায় বলবেন না। এর পিছনেও হয়তো রয়েছে কোনও হিসেবি সমীকরণ!