সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

শের-ই-পঞ্জাবে তাই খাবার

লিখছেন শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়

5
ছবি: অনুষ্টুপ ভট্টাচার্য

কলকাতার যশোহর রোডের উপর বিমানবন্দরের রানওয়ের বিপরীতে সুকান্তনগরে বিশাল জায়গা নিয়ে অবস্থিত শের ই পাঞ্জাবের নাম সারা ভারতব্যাপী। এক সর্ব ভারতীয় বিখ্যাত পত্রিকার বিচারে ভারতের সেরা ৩০টি রেস্তোরাঁর মধ্যে নির্বাচিত হয় শের ই পাঞ্জাব ধাবা। এখানকার মোগলাই ও নর্থ ইন্ডিয়ান খাবারের পাশাপাশি থাই খাবারেরও বিশেষ খ্যাতি। কর্ণধার কমলপ্রীত সিংহ ওরফে বান্টির মামাবাড়ি থাইল্যান্ডের ব্যাঙ্ককে। ছোটবেলা থেকে কৈশোরের বেশ কিছুটা সময় তার কেটেছে সেখানে। তাই থাই ভাষার মতো থাই রান্নাতেও বিশেষ পারদর্শী বান্টি সিংহ। বান্টির হাতের তৈরি থাই খাবারের ভক্ত সাধারণ খাদ্য রসিক থেকে বহু বিখ্যাত সেলিব্রিটি। মুম্বইয়ের বাঙালিরা কলকাতায় এলে একবার এখানে এসে বান্টির তৈরি থাই খাবার খেয়ে যেতে পারেন। তবে মুম্বইয়ে বসেই যাতে সহজ কিছু উপাদেয় থাই খাবার তৈরি করে খেতে পারেন তাই বান্টি গুটি কয়েক থাই খাবারের রেসিপি জানিয়েছেন।

 

থাই ক্রিস্পি এগ স্যালাড

উপকরণ: ডিম—৩টে, গোটা পুদিনপাতা—৩ টেবিলচামচ, ধনে পাতা—৩ টেবিল চামচ, একটা বড় সাইজের পেঁয়াজের অর্ধেক— সরু লম্বা করে কাটতে হবে। একটা বড় সাইজের টম্যাটোর অর্ধেক বীজ বাদ দিয়ে সরু লম্বা করে কেটে নিতে হবে। কাঁচা চাল—২ টেবিল চামচ, কড়া বা ননস্টিকি ফ্রাইংপ্যান আঁচে বসিয়ে চাল দিয়ে নেড়ে হালকা বাদামি রং করে ভেজে আঁচ থেকে নামিয়ে নিন। এর পর ভাজা চালগুলো থেঁতো করে নিন। চাটনির জন্য: গোড়াসমেত ২টো ধনেপাতার ডাঁটি, ৪টে রসুন কোয়া, ৪টে গোটা কাঁচালঙ্কা, নুন আন্দাজ মতো।

গোড়া-সহ ধনেপাতার ডাঁটি, রসুন, কাঁচালঙ্কা ও নুন একসঙ্গে শিলে বা মিক্সিতে বেটে একটা মিশ্রণ তৈরি করে নিন। চাটনির মিশ্রণ তৈরি হয়ে গেল। এ বার এই চাটনির মিশ্রণের মধ্যে হাফ চা-চামচ চিনি, ২ টেবিল চামচ সাদা ভিনিগার দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন, চাটনি তৈরি হয়ে গেল। পাতিলেবুর রস ২ টেবিল চামচ, নুন আন্দাজ মতো।

প্রণালী: ফ্রাইংপ্যান আঁচে বসিয়ে সাদা তেল গরম করে ডিম ফাটিয়ে ওর মধ্যে দিয়ে প্রথমে পোচের মতন করে তার পর উল্টে দু’ পিঠ ভেজে নিন। ভাজা হয়ে গেলে তুলে রাখুন। প্রতিটি ফ্রায়েড এগ চার খণ্ড করে কেটে নিন। এ বার একটি পাত্রে ভাজা ডিমের খণ্ড, সরু লম্বা লম্বা করে কাটা পেঁয়াজ ও টম্যাটো, গোটা পুদিনাপাতা ও ধনেপাতা, চাটনির মিশ্রণ, নুন, পাতিলেবুর রস দিয়ে খুব ভাল করে চামচ দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন। সবশেষে পেষাই করা ভাজা চাল ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

 

থাই স্টাইল সিফুড স্প্যাগেট্টি

উপকরণ: স্প্যাগেট্টি—৩০০ গ্রাম, সসপ্যান আঁচে বসিয়ে আন্দাজ মতো জল নিয়ে ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল দিয়ে স্প্যাগেট্টি সিদ্ধ করে নিন। জল ঝরিয়ে আলাদা করে রাখুন। অলিভ অয়েল—৩ টেবিল চামচ, রসুন কুঁচি—২ টেবিল চামচ, খোসা শিরা বাদ দাওয়া চিংড়ি মাছ—৫০ গ্রাম, লম্বা লম্বা পাতলা করে কাটা বোনলেস চিকেন—৫০ গ্রাম, স্কুইড—২৫ গ্রাম, ছোট ছোট কিউব করে কাটা বোনলেস ভেটকি মাছ—৫০ গ্রাম, নুন ও পেষাই করা কালো গোলমরিচ—আন্দাজমতো, সুইট বেসিল পাতা—এক মুঠো।

প্রণালী: ওক বা ফ্ল্যাট কড়া আঁচে অলিভ অয়েল গরম করে রসুন কুচি দিয়ে একটু নেড়ে চিংড়ি, বোনলেস চিকেন, স্কুইড ও বোনলেস ভেটকি মাছের খণ্ড দিয়ে নেড়ে ভেজে নিন। চিংড়ি, চিকেন, স্কুইড ও মাছ পেকে গেলে ওর মধ্যে সিদ্ধ করা স্প্যাগেট্টি দিন। এর পরে নুন, গোলমরিচ ও বেসিলপাতা ছড়িয়ে দিয়ে ভাল করে নেড়ে মিশিয়ে নিন। আঁচ থেকে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

 

থাই স্টিমড ফিশ

উপকরণ: বোনলেস ভেটকি বা বাসা মাছের ফিলে—৪০০ গ্রাম, মোট চার খণ্ড করে নিতে হবে। মাছগুলো ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। ১টা পাতিলেবুর রস, চিনি—হাফ চা-চামচ, রসুনকুচি—১ চা-চামচ, ৩টে কাঁচালঙ্কা কুচি, নুন— আন্দাজ মতো, আখের গুড়—হাফ চা-চামচ, ধনেপাতাকুচি—১ টেবিল চামচ।

প্রণালী: সসপ্যান আঁচে বসিয়ে আন্দাজ মতো জল দিয়ে মাছগুলো সিদ্ধ করে নিন। হয়ে গেলে আঁচ থেকে নামিয়ে মাছগুলো সিদ্ধ করা জলসমেত একটা বড় কাচের পাত্রে রাখুন। একটা কাচের বাটিতে পাতি লেবুর রস, চিনি, রসুনকুচি, কাঁচালঙ্কা কুচি, নুন, আখের গুড় নিয়ে চামচ দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে একটা মিশ্রণ তৈরি করে নিন। এ বার এই মিশ্রণটা সিদ্ধ করা মাছের উপর ছড়িয়ে দিন। তার উপর ধনেপাতাকুচি ছড়িয়ে পরিবেশন করুন জেসমিন বা গোবিন্দভোগ চালের ভাত সহযোগে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন