আপনার কি রাতে ঘুমোনোর আগে বই পড়ার অভ্যেস? কিন্তু সঙ্গী বিরক্ত আপনার এই অভ্যেসে। সমস্যাটা আলো নিয়ে। চোখের উপরে আলোয় বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে তার ঘুম। অথচ অন্য ঘরে বই পড়লে সম্পর্কের দূরত্ব তৈরি হওয়ার ভয়েও আপনি কাবু... তাই এমন আলোরই খোঁজ দিচ্ছে পত্রিকা, যাতে আপনার দাম্পত্যেও ফাটল না ধরে, আবার অভ্যেসও বজায় থাকে।

 

পোর্টেবল অ্যাডজাস্টেবল বা ফ্লেক্সিবল টেবল ল্যাম্প:

আপনার চোখে সরাসরি আলো পড়বে না, আবার অপরের চোখেও সেই আলো পৌঁছবে না। সুয়িং হওয়ায় ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে, উপর-নীচ করেও ব্যবহার করতে পারবেন এই আলো। আবার ডিমারেরও সাহায্য নিতে পারেন।

লাইট ইন বেড:

খাটের মাথার এক কোনায় এই টাস্ক লাইট রাখতে পারলে ভাল। এই আলো জোরদার হলেও তা চোখের পক্ষে ক্ষতিকারক নয়। কারণ এই আলোয় সর্বদা শেড থাকে।

রিচার্জেবল রিডিং ল্যাম্প:

আলাদা ইলেকট্রিসিটির প্রয়োজন নেই এ ক্ষেত্রে। চার্জেবল ব্যাটারি বা ইউএসবি চার্জারের মাধ্যমেও চলে।

ফ্লেক্সিবল বেডলাইট

রিচার্জেবল ফ্লেক্সিবল ক্লিপ অন বুক রিডিং লাইট:

এ ক্ষেত্রে আলো বাড়ানো বা কমানো যায়। শুধু বইয়ের মধ্যে ক্লিপ করে নিলেই চলবে।

ক্লিপ অন রিডিং লাইট:

এ ক্ষেত্রে যে বইয়ের পাতা পড়তে চাইবেন, সেই পাতার মাঝখানে ক্লিপ লাইটটি আটকে নিতে হবে। কেবল মাত্র বইয়ের পাতায় যথোপযুক্ত আলোর ভারসাম্য বজায় রাখাই এই আলোর কাজ।

ইয়ার বুক লাইট:

এমনও হতে পারে, আপনার বিছানার পাশে কোনও পাওয়ার পয়েন্ট বা টেবিল রাখারও জায়গা নেই। তা হলে আপনার জন্য আছে ইয়ার বুক লাইট। এই আলো আপনার কানে আটকে নিন। আছে হেয়ারব্যান্ড লাইটও!

ব্যস, বই পড়ার আনন্দ থেকে আপনাকে বঞ্চিত করবে কে আর!